ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৬

সাতক্ষীরায় স্কুলছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৭

http://www.dhakatimes24.com/2018/02/14/69229/সাতক্ষীরায়-স্কুলছাত্রকে-পিটিয়ে-হত্যা-আটক-৭
BYসাতক্ষীরা প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস

সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এসময় আহত হয়েছে তার এক সহপাঠী।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সাতক্ষীরা শহরতলীর বকচরা বাইপাস সড়কে ভ্যানচালক রমজান আলীর বাড়ির পাশে এই হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে নিহতের এক সহপাঠীসহ সাতজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের নাম সাকিব হোসেন। সে পুলিশ লাইন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণির ছাত্র ও পলাশপোল মেহেদীবাগে বসবাসরত কলারোয়া উপজেলার সরসকাটি পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত সিপাহী নজরুল ইসলামের ছেলে।

আটকেরা হলেন, শহরের কামাননগরের হাফিজুল ইসলাম (৬০), মেহেদি হাসান ফয়সল (১৫), শামীমুজ্জামান অমি (১৪), যুবায়ের হোসেন (১৮), রনি (১৮), শাহিনুর (২৪) এবং ইটাগাছার আবু হাসান (৩৮)।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শহরের রসুলপুরের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুর রাশেদ জানান, তিনিসহ তার দিই সহপাঠী অমি ও সাকিব মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে বকচরা আহমদিয়া দাখিল মাদ্রাসার মাঠে ইছালে সওয়াব শুনতে যায়। সেখানে একটি স্টলে খাবার কেনা নিয়ে তাদেরই পরিচিত কামাননগর কলোনির আব্দুল কাদের ও শান্তর সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হলে স্থানীয়রা বিষয়টি মীমাংসা করে দেনে।

রাত ১০টার দিকে তিনি সাকিব ও অমি বাড়ি ফেরার ফিরছিল। বাইপাস সড়কের বাসিন্দা ভ্যানচালক রমজানের বাড়ির কাছে পৌঁছার পর পেছন থেকে কাদের ও শান্তসহ কয়েকজন তাদেরকে গাছের ডাল দিয়ে এলোপাতাড়ি পেটাতে থাকে।

হামলার একপর্যায়ে অমি পালিয়ে গেলেও স্থানীয়রা গুরুতর জখম অবস্থায় রাশেদ ও সাকিবকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা সাকিবকে মৃত ঘোষণা করেন।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক হাফিজুল্লাহ জানান, ভারী জিনিস দিয়ে আঘাত লাগার ফলে মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ হয়ে সাকিবের মৃত্যু হয়েছে। রাশেদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের তথ্য কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মহিদুল হক জানান, আমিরুজ্জামান বাবুর ছেলে অমিসহ জিজ্ঞাসাবদের জন্য সাতজনকে আটক করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বুধবার সকালে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ঢাকাটাইমস/১৪ফেব্রুয়ারি/প্রতিনিধি/এমআর