ঢাকা, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
BYভোলা প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অগ্রবতী অংশের প্রভাব পড়তে শুরু উপকূলীয় অঞ্চলে। ইতিমধ্যে দ্বীপ জেলা ভোলার লালমোহন ও চরফ্যাশন উপজেলায় দমকা বাতাসে সাতটি ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত আটজন।

শনিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে লালমোহনের পশ্চিম চর উমেদ ও চরফ্যাশনের ওসমানগঞ্জ ইউনিয়নের এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে প্রাথমিকভাবে তিন জনের নাম জানা গেছে। এরা হলেন- পশ্চিম চর উমেদ; ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ মাল, তার ছেলে ইমরান ও তিশান।

ওই এলাকার বাসিন্দা মো. ইব্রাহীম জানান, রাত সাড়ে নয়টার দিকে তীব্র বাতাসের ঝাপটার আওয়াজ শুনতে পান। মুহূর্তের মধ্যে ওই এলাকার রশিদ মালসহ একই বাড়ির আরও দুইটি ঘর বিধ্বস্ত হয়। এ সময় বাড়ির গাছপালাও উপড়ে পড়ে।

তিনি আরও জানান, একই সময়ে ওই এলাকার পাশের এলাকা চরফ্যাশনের ওসমানগঞ্জ ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের আব্দুল মোতালেব ও তার ছেলে মামুন ও বিল্লালের ঘড় বিধ্বস্ত হয়েছে। পাশের বাড়ির আব্দুল মুনাফের বসত ঘরটিও বিধ্বস্ত হয়ে যায়। এ সময় ওই এলাকার রাস্তার গাছপালাও উপড়ে পরেছে বলে জানান তিনি।

অপরদিকে লালামোহন উপজেলার লর্ডহাডিঞ্জ ইউনিয়নের চরপেয়ারীমোহন এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ে ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত পাঁচ জন আহত হয়েছেন। তবে সেখানকার আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে লালামোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাবিবুল হাসান রুমি বলেন, আমরা লর্ডহাডিঞ্জ ইউনিয়নের রায়চাঁদ এলাকায় গাছ পড়ে এক জন আহত হওয়ার খবর পেয়েছি। তবে বাকিদের খবর আমরা পাইনি।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানাচ্ছে শনিবার মধ্যরাতে ঘূর্ণিঝড়ের মূল অংশটি খুলনা উপকূলীয় অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশে আঘাত হানবে। এর প্রভাব দেশের মধ্যাঞ্চলেও বয়ে যেতে পারে।

ঢাকাটাইমস/০৯নভেম্বর/ইএস