ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
BYনিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস

প্রতীকী ছবি দেশের চার জেলায় পৃথক ঘটনায় এক তরুণী, ছাত্রী, শিশু ও প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। নোয়াখালী, রংপুর, সুনামগঞ্জ ও কুমিল্লার এসব ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুই পুলিশসহ চারজনকে। নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার হরণী ইউনিয়নে রাতের আঁধারে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে নদীর পাড়ে এক তরুণীকে ধর্ষণ করেছেন এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় ওই তরুণী বাদী হয়ে রবিবার রাতে স্থানীয় হেলাল উদ্দিন ও তার সহযোগী জামসেদকে আসামি করে হাতিয়া থানায় মামলা করেছেন।

পুলিশ অভিযান চালিয়ে সোমবার ভোরে উপজেলার কাজিরটেক এলাকা থেকে হেলাল উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে। মেয়েটিকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

হাতিয়া থানার ওসি মো আবুল খায়ের জানান, এ ঘটনায় রবিবার রাতে ওই নারী বাদী হয়ে হেলালকে প্রধান ও জামসেদকে দ্বিতীয় আসামি করে মামলা করেছেন। ইতোমধ্যে কাজিরটেক এলাকায় অভিযান চালিয়ে হেলালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হেলালের সহযোগী জামসেদকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

রংপুর নগরীতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে ডিবি পুলিশের এক সদস্যসহ দুজনকে আটক করা হয়েছে। রবিবার রাতে মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুজনকে আটক করে। তারা হলেন- রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিবিতে কর্মরত এএসআই রায়হানুল ইসলাম ওরফে রাজু এবং ক্যাদারের পুল এলাকায় স্থানীয় শহিদুল্লাহ মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া আলেয়া বেগম।

নির্যাতিত ছাত্রীকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রংপুর নগরীর হারাগাছ থানার ময়নাকুঠি কচুটারী এলাকার নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন এএসআই রায়হানুল ইসলাম ওরফে রাজু। তিনি রবিবার সকালে ওই ছাত্রীকে ক্যাদারের পুল এলাকায় স্থানীয় শহিদুল্লাহ মিয়ার ভাড়াটিয়া আলেয়া বেগমের বাড়িতে ডেকে আনেন। সেখানে প্রথমে রাজু ও পরে তার পরিচিত কয়েকজন যুবক মেয়েটিকে ধর্ষণ করে।

ধর্ষণের শিকার মেয়েটি নিজেই হারাগাছ থানায় বিষয়টি জানালে রাত সাড়ে ৮টার দিকে পুলিশ মেয়েটিকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ অভিযান চালিয়ে রাজু ও আলেয়া বেগমকে আটক করে।

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলায় নয় বছর বয়সী শিশুকে নিজ বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে। সোমবার সকালে সুরমা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত মিসির আলী উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের কাউয়ার গড় গ্রামের বাসিন্দা।

জানা যায়, মিসির আলী একই ইউনিয়নের অসহায় এক রিকশা চালকের মেয়েকে তার নিজ বাড়িতে একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় মেয়েটি পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর থেকে অভিযুক্ত মিসির আলী পলাতক রয়েছেন।

কুমিল্লার ব্রা‏হ্মণপাড়ায় ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী কিশোরী চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়েছে। এ ঘটনায় আবুল হাসান নামে একজনের বিরুদ্ধে শনিবার রাতে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেছেন কিশোরীর মা। পুলিশ শনিবার রাতেই কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকা থেকে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তার আবুল হাসান ব্রা‏হ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর গ্রামের বাসিন্দা। তাকে সোমবার দুপুরে কুমিল্লা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

ব্রা‏‏হ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজম উদ্দিন মাহমুদ জানান, অভিযুক্ত আবুল হাসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিশোরীটি আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতনের ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/২৬অক্টোবর/এনআই/ইএস)