ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
BY  নরসিংদী প্রতিনিধি ০৯ নভেম্বর ২০১৮, ১৩:১২ | অনলাইন সংস্করণ
নিহতের স্ত্রীর আহাজারি। ছবি-যুগান্তর নরসিংদীতে ছেলের হাতে ফজলুল করিম (৫৬) নামে এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন।

শুক্রবার সকালে শহরের চৌয়ালা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফজলুল করীম চৌয়ালা এলাকার লাল মাহমুদের ছেলে।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ছেলে মাসুম মিয়াকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারসূত্রে জানা যায়, প্রায় ৬ বছর আগে ফজলুল করিমের প্রথম স্ত্রী মারা গেলে তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন।

এর পর থেকে মেজো ছেলে মাসুম মিয়া তার বাবাকে সম্পদের ভাগবাটোয়ারা করে দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন।

এ নিয়ে মাসুম প্রায়ই তার সৎমায়ের ওপর নির্যাতন করতেন।

প্রায় দেড় বছর আগে বাকবিতণ্ডা হলে মাসুম তার বাবার মাথায় আঘাত করেন।

ওই ঘটনায় ফজলুল করিম তার ছেলের বিরুদ্ধে মামলা করে জেলহাজতে পাঠান।

পরে পরিবারের অনুরোধে তিনি তার ছেলেকে জেল থেকে বের করেন।

জেল থেকে বের হয়ে আবার তিনি সৎমায়ের সঙ্গে ঝগড়া-বিবাদে জড়িয়ে পড়েন।

আজ দুপুরে ফজলুল করিমের মেয়ের জামাই বিদেশ থেকে আসার কথা। মেয়ের জামাইকে আনতে সকালে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তিনি।

বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় মাসুম পেছন থেকে সাবল দিয়ে তার ঘাড়ে কোপ দেন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর থেকেই মাসুম পলাতক রয়েছে।

নিহতের স্ত্রী স্বপ্না আক্তার বলেন, বিয়ের পর থেকে একদিনও মাসুমের জন্য শান্তিতে সংসার করতে পারেনি। সে সবসময়ই সম্পদের জন্য আমার স্বামীকে চাপে রাখত।

সম্পদের কারণেই মাসুম আমার স্বামীকে হত্যা করেছে বলে দাবি করেন তিনি।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ওসি সৈয়দুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, আমরা নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি।

এ বিষয়ে থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি।