ঢাকা, রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

৫ কেজি দুধেও মিলছে না ১ কেজি পেঁয়াজ!

https://www.jugantor.com/country-news/243111/৫-কেজি-দুধেও-মিলছে-না-১-কেজি-পেঁয়াজ
BY  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি ১২ নভেম্বর ২০১৯, ১৮:৩২ | অনলাইন সংস্করণ
অবৈধভাবে গুদামজাত করে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছে সিন্ডিকেট। ফলে পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কমছে না। এতে ধামরাইয়ের খুচরা বাজারে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা কেজি দরে।

ফলে ধামরাইয়ে ৫ কেজি গাভীর দুধেও মিলছে না ১ কেজি পেঁয়াজ।

কারণ, ধামরাইয়ের বাজারগুলোতে প্রতিকেজি গাভীর দুধ বিক্রি হচ্ছে মাত্র ৩০ টাকায়। তাহলে ৫ কেজি দুধের দাম হয় ১৫০ টাকা। আর এক কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়।

কৃষক জবেদ আলী জানান, ৫ কেজি দুধ নিয়ে বাজারে গিয়ে ৩০ টাকা দরে ১৫০ টাকা বিক্রি করেছি। পকেট থেকে আরও ১০ টাকা ভর্তুকি দিয়ে ১ কেজি পেঁয়াজ কিনেছি। পূর্বের মতো পেঁয়াজ খেলে তো এক কেজি পেঁয়াজ মাত্র একদিন যাবে। পেঁয়াজের দাম বলে এখন এক কেজি পেঁয়াজ খেতে হচ্ছে ৪ দিন।

কৃষক মোহাম্মদ আলী জানান, ৩৫ টাকা দরে ৪ কেজি দুধ বাজারে বিক্রি করে পেয়েছি ১৪০ টাকা। দেশি পেঁয়াজের দাম পকেটে না থাকায় ইন্ডিয়ান এক কেজি পেঁয়াজ কিনেছি ১৪০ টাকা দিয়ে। টাকার অভাবে এক পোয়া কাঁচা মরিচও কিনতে পারিনি। পেঁয়াজের বাজারে যেন আগুন ধরেছে।

অপরদিকে পেঁয়াজ বিক্রেতারা ক্রেতা সাধারণের অভিযোগ স্বীকার করে বলেন, আমাদের কিছুই করার নেই। আমরা আড়ৎ থেকে যেভাবে ক্রয় করি সেভাবেই বিক্রি করি। আমাদের কেজি প্রতি এক দুই টাকা মুনাফা হলেই যথেষ্ট। সরকারের ঘোষণার সঙ্গে কাজের কোনো মিল নেই। তাই এককভাবে ব্যবসায়ীদের দায়ী করলে হবে না।

পক্ষান্তরে আড়ৎদাররা বলছেন ভিন্ন কথা, পেঁয়াজ দেশের বাইরে থেকে আমদানি করা হচ্ছে। বেশি দরে কেনার ফলে পেঁয়াজের মূল্য কমছে না। এ ছাড়া যে পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানির কথা রয়েছে তার এক-তৃতীয়াংশ পেঁয়াজও দেশে এসে পৌঁছায়নি। পেঁয়াজের সব চালান দেশে পৌঁছালে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমবে। তবে ১০০-১২০ টাকার নিচে পাওয়া যাবে না। একমাত্র নতুন পেঁয়াজ বাজারে না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল হবে না।