ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

শ্রমিক কল্যাণে টাকা জমা দিল মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও ডিএসই

http://dainikamadershomoy.com/bangladesh/146543/শ্রমিক-কল্যাণে-টাকা-জমা-দিল-মেঘনা-পেট্রোলিয়াম-ও-ডিএসই
BY  নিজস্ব প্রতিবেদক ১০ জুলাই ২০১৮, ২০:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক। পুরোনো ছবি বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে ২ কোটি ২৩ লাখ ৮২ হাজার টাকা জমা দিয়েছে মেঘনা পেট্রোলিয়াম ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। প্রতিষ্ঠান দুটি গত এক বছরের লভ্যাংশের নির্দিষ্ট অংশ জমা দেয়।

আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে সরকারি প্রতিষ্ঠান দুটির প্রতিনিধিরা শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হকের হাতে চেক হস্তান্তর করেন।

মেঘনা প্রেট্রোলিয়াম লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং) আহমেদ শহীদুল হক ১ কোটি ৫৬ লাখ ৫৩ হাজার ৯৯১ টাকা এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান সৈয়দ আল আমিন রহমান ৬৭ লাখ ২৮ হাজার ২০৭ টাকার চেক নিজ নিজ কোম্পানির পক্ষে প্রতিমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, ফাউন্ডেশন তহবিল থেকে এ পর্যন্ত আমরা অসহায় শ্রমিকদের ২৪ কোটি টাকা সহায়তা দিয়েছি। বর্তমানে শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে প্রায় ৩০৫ কোটি টাকা জমা আছে। প্রতিমন্ত্রী লাভজনক বিভিন্ন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে শ্রম আইন মেনে লভ্যাংশের নির্দিষ্ট অংশ এ তহবিলে প্রদানের অনুরোধ জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সবাই শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশন তহবিলে লভ্যাংশের নির্দিষ্ট অংশ জমা দিলে আর কোন শ্রমিক অসহায় থাকবে না।

অনুষ্ঠানে শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. আনিসুল আওয়ালসহ মন্ত্রণালয়, মেঘনা প্রেট্রোলিয়াম লিমিটেড এবং ঢাকা স্টক এক্সেচেঞ্জের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

২০০৬ সালের শ্রম আইন (২০১৩ সালে সংশোধিত) অনুযায়ী, ২ কোটি টাকার বেশি মূলধনী প্রতিষ্ঠানের এক বছরের নিট লভ্যাংশের মধ্যে চার শতাংশ অর্থ নিজ কোম্পানির শ্রমিকদের জন্য বরাদ্দ থাকে। বাকি এক শতাংশের অর্ধেক প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব শ্রমিক কল্যাণ তহবিলে, বাকি অর্ধেক শ্রম মন্ত্রনালয়ের অধীন শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের তহবিলে জমা দিতে হয়। এ তহবিল থেকে প্রাতিষ্ঠানিক, অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে নিয়োজিত শ্রমিকদের কল্যাণে অর্থ সহায়তা দেয় সরকার।