ঢাকা, রবিবার, ২৬ মে ২০১৯, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

জ্বালানি সমস্যার সমাধান শুধু বিদ্যুৎ উৎপাদন নয়

http://www.prothomalo.com/economy/article/1583491/উন্নয়নের-জন্য-শক্তি
BYনিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা
১৪ মার্চ ২০১৯, ২১:১৭

একজন ভোক্তা, যিনি বিদ্যুৎ ব্যবহারও করেন, আবার উৎপাদনও করেন। উৎপাদনের পর অতিরিক্ত বিদ্যুৎ পাঠিয়ে দেন জাতীয় গ্রিডে। ঘরের মিটারের গুণে এমন একটি কার্যক্রম আমাদের দেশে অকল্পনীয় মনে হলেও অস্ট্রেলিয়ায় খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। সেখানে সাধারণ ভোক্তা সোলার প্যানেলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেন, আবার অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিক্রিও করে ফেলেন। স্মার্ট এই ভোক্তাদের ডাকা হয়, ‘প্রোজিউমার’ বলে।

বৃহস্পতিবার গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরে ব্র্যাক সিডিএমে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি-বিষয়ক তিন দিনের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রথম দিনে ‘উন্নয়নের জন্য শক্তি’ বিষয়ে এমন সম্ভাবনার কথা উঠে আসে। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগ ও ইনস্টিটিউট অব ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের পাওয়ার অ্যান্ড এনার্জি সোসাইটি এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে।

সকালে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি–বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। এতে উপস্থিত ছিলেন ইনস্টিটিউট অব ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের পাওয়ার অ্যান্ড এনার্জি সোসাইটির প্রেসিডেন্ট সাইফুর রহমান, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ভিনসেন্ট চাং, তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের প্রধান শহীদুল ইসলাম খান।

তৌফিক-ই-ইলাহী বলেন, ‘বাংলাদেশে জনসংখ্যার ঘনত্বের হিসাব করলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সারা বিশ্বের জনগণকে জায়গা দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। এমন একটা দেশ আমাদের জন্য একটি যেমন বিশাল চ্যালেঞ্জ তেমনি অনন্য সম্ভাবনারও।’ তিনি আরও বলেন, ‘জ্বালানি সমস্যার সমাধান শুধু বিদ্যুৎ উৎপাদন নয়, বরং জ্বালানির সঠিক ব্যবহার এবং জ্বালানি উৎপাদন ও ক্রয়ের সঠিক পরিকল্পনা। গত দশ বছরে মাত্র ৪৫ শতাংশ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ ছিল, এখন ৯০ শতাংশের বেশি মানুষের কাছে বিদ্যুৎ আছে। কাজেই আমরা যদি দৃঢ় প্রত্যয়ী হই, তবে আরও মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া সম্ভব।’

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ভিনসেন্ট চ্যাং বলেন, বহু বছরের তথ্য–উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এমআইটির একজন অর্থনীতিবিদ রবার্ট সোলো দেখিয়েছেন- একটা দেশ তখনই উন্নত হয়, যখন তারা তাদের জ্বালানিকে সঠিক ব্যবহার করতে পারে।

সম্মেলনে বক্তারা বাংলাদেশের জ্বালানি খাতের সম্ভাবনা, ঝুঁকি এবং সুযোগ নিয়ে আলোচনা করেন। পাশাপাশি আশপাশের দেশগুলোর মধ্যে সময় ও প্রাপ্যতার ভিত্তিতে বিদ্যুৎ পরস্পরের মধ্যে বিনিময়ের সম্ভাবনা ও প্রয়োজনীয়তার বিষয়ও উল্লেখ করেন।

প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনে অংশ নেন দেশি-বিদেশি শতাধিক গবেষক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও শিল্প উদ্যোক্তা। যাঁদের ৩৪ জন বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। তিন দিনের এই সম্মেলন চলবে ১৬ মার্চ পর্যন্ত। এই সম্মেলনের সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছে প্রথম আলো।