ঢাকা, শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ৮ মাঘ ১৪২৭

চিকিৎসার ‘অভাবে’ মারা গেলেন তাজরিন ফ্যাশনের সেই শারমিন

https://www.ppbd.news/whole-country/181654/চিকিৎসার-‘অভাবে’-মারা-গেলেন-তাজরিন-ফ্যাশনের-সেই-শারমিন
BYসাভার প্রতিনিধি
প্রকাশ:  ২৫ নভেম্বর ২০২০, ২০:৩৪ | আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২০, ২০:৩৯

শারমিন আক্তার। সাভারের আশুলিয়ায় নিশ্চিন্তপুরে তাজরিন ফ্যাশনে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় আহত শারমিন আক্তার নামে অসুস্থ এক শ্রমিক মারা গেছেন। দুর্ঘটনার পর থেকেই চিকিৎসার অভাবে অসুস্থতায় ভুগছিলেন বলে অভিযোগ নিহতের স্বজন ও শ্রমিক নেতারা।

বুধবার (২৫ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আশুলিয়ার ইয়ারপুর টানপাড়া এলাকায় তার নানার বাড়িতে শ্রমিক শারমিন আক্তার মারা যান।

সম্পর্কিত খবর

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় শ্রমিক নেতারা ওই শ্রমিক নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। শারমিন তাজরিন ফ্যাশনের চতুর্থ তলায় সুইং অপারেটর হিসেবে কাজ করতেন। শারমিনের ১৩ ও ৮ বছরের দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে। তার স্বামী আব্দুল করিম দিনমজুর। সে তার আশুলিয়ার ইয়ারপুর টানপাড়া এলাকায় নানা সিরাজুল ইসলামের বাড়িতে থাকতেন।

নিহতের পরিবার জানায়, দীর্ঘ আট বছর ধরে চিকিৎসার অভাবে অসুস্থতায় ভুগছিলেন শারমিন আক্তার। আজ সকালে তার মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের সহকর্মী তাজরিনের ফ্যাশনের শ্রমিক ও প্রত্যক্ষদর্শী নাছিমা আক্তার জানান, শারমিন ও তিনি তাজরিনের চার তলায় একই ফ্লোরে কাজ করতেন। ২৪ নভেম্বর আগুন লাগার পরপর ওই ফ্লোর ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে যায়। তখন শারমিন অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর থেকেই সে অসুস্থ ছিল।

বাংলাদেশ গার্মেন্টস টেইলার্স ওয়ার্কাস লীগের সাভার-আশুলিয়া শাখার সভাপতি রাকিবুল ইসলাম সোহাগ বলেন, ‘তাজরিনের আহত শ্রমিক শারমিন আক্তার আজ সকাল সাড়ে ৯টায় মারা গেছেন। তাজরিন গার্মেন্ট দুর্ঘটনার পর থেকে এই শ্রমিক অসুস্থ ছিল। সে কোন চিকিৎসা পায়নি। কোন সাহায্য সহযোগিতাও পায়নি। আমরা খবর পেয়ে তার বাড়িতে এসেছি।’

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে এই শ্রমিক নেতা বলেন, ‘তাজরিনের এই শ্রমিক আট বছর ধরেই অসুস্থ ছিল। গত ৭০ দিনের বেশী সময় ধরে সে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে তাজরিনের শ্রমিকরা পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে অনশন করছে। কয়েক দিন আগে ওই শ্রমিকদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছিল শারমিন। পরে সেখানে অসুস্থ হয়ে গেলে তার সহকর্মীরা তাকে আশুলিয়ায় বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এরপর এলাকার লোকের কাছে ৫০ থেকে ১০০ টাকা সাহায্য নিয়ে চিকিৎসা করানো হয়। কিন্তু ভালো চিকিৎসা না পেয়ে আজ সকালে শারমিন মারা যায়।’

বিপ্লবী গার্মেন্ট-শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি অরবিন্দু বেপারী বিন্দু বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য আজ আমরা তাজরিনের আরো এক বোনকে হারালাম! সুচিকিৎসা ও আর্থিক সংকটের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে। কেন এই শ্রমিক বিনা চিকিৎসায় মারা গেল? কারখানা মালিক ও বিজিএমইএ’র কাছে এর জবাব চাই। ধিক্কার জানাই এরকম মালিক ও বিজিএমইএ’র প্রতি। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি

পূর্বপশ্চিমবিডি/এনএন