ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
BY  এ মিজান ১২ জুলাই ২০১৮, ১৬:২২ | আপডেট : ১৩ জুলাই ২০১৮, ০২:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

চলচ্চিত্র ও নাটকে নিয়মিত কাজ করছেন সোহানা সাবা। বাংলাদেশের গণ্ডি পেরিয়ে কলকাতার চলচ্চিত্রেও দেখা গেছে এই অভিনেত্রীকে। বর্তমানে তার ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি-

পাপকাহিনি ছবির কাজ কতদূর?

শুটিং বেশ আগেই শুরু হয়েছিল। এখন শুটিং হচ্ছে না। এরমধ্যে এর কাজ করার কথা ছিল কিন্তু কি কারণে যেন আবারও কাজ পিছিয়েছে।

তাহলে এখন কোন কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

এই মুহূর্তে আমি একটু ফ্রি আছি। আবার কয়েকদিন পর কলকাতায় যাব।

কলকাতায় এপার ওপার নামে একটি ছবিতে কাজ করছিলেন এই ছবির কাজেই কি যাবেন?

‘এপার ওপার’ ছবির শুটিং শেষ হয়েছে। এখন শুধু ডাবিং বাকি আছে। এই ছবির ডাবিং করব। এছাড়াও অন্যান্য কিছু কাজ আছে।

অন্যান্য কাজ বলতে নতুন ছবির কোনো কাজ নাকি?

কিছু কাজের কথা চলছে। কাজ চূড়ান্ত না হওয়ার আগে কিছু বলা উচিত নয়। তাই সবকিছু চূড়ান্ত হলেই সবাইকে জানাব।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছোট গল্প অবলম্বনে নির্মিত ধারাবাহিক নাটকে কাজ করলেন-

আগামী ১৪ জুলাই থেকে দীপ্ত টিভিতে ধারাবাহিকটি প্রচার শুরু হবে। এটা অনেক ভালো কাজ। রাজু খানের পরিচালনায় নাটকটির নাম ‘মধ্যবর্তিনী’। খুব ভালো একটি কাজ হয়েছে। আমি যখন কাজ করেছি তখনই বুঝতে পেরেছি অসাধারণ একটি কাজ হয়েছে। আমার মনে হয় এটা কিছু একটা হতে চলেছে।

উপন্যাস বা ছোট গল্পের ওপর নির্মিত নাটক টেলিফিল্মে আপনার উপস্থিতি নিয়মিত এই ধরনের কাজ করতে কি বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?

আমি ক্যামেরারমানুষের সঙ্গে অনেকদিন থেকেছি। পরিচালকরা যখন চিন্তা করে, কাকে নেওয়া যায়, কে অভিনয় পারবে, কে চরিত্রের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারবে? তখন হয়তো আমার প্রতি বিশ্বাস করতে পারেন তারা। ওই বিশ্বাসের জায়গা হয়তো আমি তৈরি করতে পেরেছি। ওই জায়গা থেকে পরিচালকরা আমার অভিজ্ঞতা, আমার কাজের ধরণ দেখে আমাকে ডাকে। এজন্য আমি অনেক লাকি। তবে আমার কাছে কখনোই আমাকে ভালো অভিনেত্রী মনে হয় না।

ভালো অভিনেত্রী মনে হয় না কেন?

একজন ভালো অভিনেত্রীর যেসব রাস্তা দিয়ে আসা উচিত, সেই রাস্তা দিয়ে আমার আসা হয়নি। আমি একটা চরিত্রে যখন কাজ করি তখন খুব স্বার্থপরের মতো ওই চরিত্র আমাকে ‘নাড়ায় চাড়ায়’। কিন্তু তার মানে এই না নিজেকে আমি ভালো অভিনেত্রী মনে করব। সবচেয়ে বড় কথা আমার নাটক, আমার সিনেমা যখন প্রচার হয় আমি কিন্তু দেখি না। দেখি না এর বড় কারণ হচ্ছে আমার কাজের ডেলিভারি দেখে মনে হয় আমাকে মানুষ কেন পছন্দ করে? আমার ভেতরে এই চিন্তা হতে থাকে। আমার কাছে আনইজি মনে হয়। আমার কাছে আমার কাজ ভালো লাগে না।

অনেকদিন হয়ে গেল ব্যক্তিজীবনে একাই আছেন আবার সংসার বাঁধার পরিকল্পনা আছে কি?

জীবনটা আসলে পাখির মতো। যেই সময়টাতে মেয়েরা পড়াশোনা করবে,ক্যারিয়ার নিয়ে ভাববে সবকিছু করবে, আমার জিনিসগুলো ঠিক হয়ে গেছে উল্টা। আমার ক্যারিয়ার আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমি বিয়ে করে ফেলেছি আগে আগে। এখন আমি পড়াশোনাটা চালিয়ে যাচ্ছি। যেই সময়টাতে আমার বন্ধুরা বিয়ে করা শুরু করেছে, আমার বয়সী ছেলে মেয়েরা, সেই সময়ে আমি সিঙ্গেল হয়ে গেছি। এখন আমি তিন বছর ধরে একা আছি। এই সময়টাকে আমি উপভোগ করতে চাই। এই সময়টা যাক। তার মানে এই নয় যে, আমার কোন সঙ্গী দরকার নাই, কোন সঙ্গী আসবে না এটাও নয়। আমি খুবই প্রেমিক মানুষ, আমি প্রেম করতে ভালোবাসি। এই সময়টা কিছুদিন যাক। তার মানে এই নয় আমি বিয়ে করব না। এখন বিয়ের কথা শুনলে আমার দম বন্ধ হয়ে আসে। দম বন্ধ হওয়ার অনুভূতি যাক আমি অবশ্যই বিয়ে করব।