ঢাকা, সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৭
BYশফিক আল মামুন
২৭ জুন ২০১৯, ১২:৪৩

জুন মাসের শেষ কয়েকটা দিনে এসে আমরা হিসাব কষতে বসেছিলাম। গত ৬ মাস কেমন কেটেছে ঢালিউডের আর আগামী ৬ মাস কেমন কাটবে, এ নিয়ে কথা হয়েছে চলচ্চিত্র-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে। জানা গেছে কিছু আশার কথা, কিছু হতাশার কথা। ঢালিউডের এই গত ৬ মাস আর আগামী ৬ মাসের হিসাব-নিকাশ নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন। জানুয়ারি থেকে জুন—এই ৬ মাসে ঢালিউডে ঘটেছে তো অনেক কিছুই। কিন্তু দর্শক মনে রেখেছেন কতটা? সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শাকিব খানের মন্তব্যের ভাইরাল ভিডিও, গায়ক তাহসানের নায়ক হিসেবে অভিষেক, কয়েকজন চলচ্চিত্র তারকার ফেসবুক আইডি হ্যাকড হওয়া—সিনেমার চেয়ে গত ৬ মাসে এসবই ছিল আলোচনায়। তবে আশা করা যাচ্ছে আগামী ৬ মাসে বদলাবে চিত্র। কারণ এরই মধ্যে বদলের আভাস পাওয়া গেছে। ঈদের ছবির ব্যবসায়িক সাফল্য, মুক্তিপ্রতীক্ষিত কিছু ছবি নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আলোচনা আর গত ৬ মাসে ছবি মুক্তির সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে সামনের দিনগুলো নিয়ে প্রত্যাশা বাড়ছে। প্রাপ্তি আর প্রত্যাশার খতিয়ানের ‘ভালো’র পাল্লাই এখন পর্যন্ত ভারী হয়ে আছে।

বেড়েছে ছবি নির্মাণ

দীর্ঘদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে চলচ্চিত্রের নির্মাণ কমে যাওয়ার পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে কমছে প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যাও। কিন্তু এবারের হিসাব ভিন্ন। ২০১৮ সালের প্রথম ছয় মাসে দেশে নতুন ছবি মুক্তির সংখ্যা ছিল ১৬। ২০১৯ সালের প্রথম ছয় মাসে ছবি মুক্তির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২। চলচ্চিত্র-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, ছবি নির্মাণ যে হারে কমছে আর প্রেক্ষাগৃহ যে হারে বন্ধ হচ্ছে, এমন পরিস্থিতিতে বছরের প্রথম ছয় মাসে ছবি মুক্তির সংখ্যা বেড়ে যাওয়াটা ইতিবাচক। তবে তাঁরা মনে করেন, শুধু ছবির সংখ্যা বাড়লেই হবে না। ছবিগুলো দর্শকদের কতটা হলে টানতে পারল, সেদিকেও খেয়াল রাখা দরকার। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘২২টি ছবির মধ্যে কয়টি আলোচনায় এসেছে, কয়টি ব্যবসাসফল হয়েছে, সেই হিসাব করতে হবে। ছবিগুলো ব্যবসাসফল হলেই দেশের চলচ্চিত্র এগোবে।’

সংখ্যা বেড়েছে, ব্যবসা বাড়েনি

গত ছয় মাসে মুক্তি পাওয়া উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ছবির মধ্যে রয়েছে আমার প্রেম আমার প্রিয়া, দাগ হৃদয়ে, ফাগুন হাওয়ায়, রাত্রির যাত্রী, অন্ধকার জগৎ, বয়ফ্রেন্ড, যদি একদিন, প্রেম আমার ২, নোলক, আবার বসন্ত, পাসওয়ার্ড। এর মধ্যে বেশির ভাগ ছবিই আলোচনা তৈরি করলেও দর্শককে প্রেক্ষাগৃহ পর্যন্ত আনতে পারেনি। এর ফলে হয়নি প্রত্যাশিত ব্যবসাও। মোটকথা, সিনেমা নিয়ে আলোচনা থাকলেও ব্যবসার দিক থেকে ঢালিউডের গত ছয় মাস ছিল নিস্তেজ। তবে গত ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পাওয়া ফাগুন হাওয়ায়, মার্চে মুক্তি পাওয়া যদি একদিন অনেকের প্রশংসা কুড়ানোয় সফল ছিল। আয়ের দিক থেকে এবারের ঈদুল ফিতরে মুক্তি পাওয়া শাকিব খান অভিনীত ও প্রযোজিত পাসওয়ার্ড ছবিটি একমাত্র ২০১৯ সালের মান রেখেছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি, মধুমিতা সিনেমা হলের স্বত্বাধিকারী ও প্রযোজক ইফতেখারউদ্দিন নওশাদ বলেন, ‘গত মে মাস পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া কোনো ছবিই ব্যবসা করেনি। আলোচিত কিছু ছবি মুক্তির পরের দু-এক দিন কিছুটা ভালো করলেও পরে সপ্তাহের শেষের দিকে গিয়ে দর্শক টানতে পারেনি।’

ঈদের ছবিই ছিল ভরসা

৫ জুন ঈদুল ফিতর উপলক্ষে মুক্তি পেয়েছে তিনটি ছবি পাসওয়ার্ড, নোলক ও আবার বসন্ত। এর মধ্যে পাসওয়ার্ড ও নোলক-এর নায়ক শাকিব খান। পাসওয়ার্ড ১৭৬টি ও নোলক ৭৭টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। মুক্তির প্রথম দিন থেকেই পাসওয়ার্ড ছবিটি দর্শক আলোচনায় আসে। পাশাপাশি নোলকও এগিয়ে যায়। জানা গেছে, মুক্তির তৃতীয় সপ্তাহে এসে পাসওয়ার্ড ছবিটির হলসংখ্যা বেড়ে ২০৯-এ পৌঁছেছে। কারণ ঈদের পর থেকে এ পর্যন্ত আর কোনো নতুন ছবি মুক্তি পায়নি। তবে এই একটি ছবি নিয়েই বেশ সন্তোষ প্রকাশ করেন নওশাদ। বলেন, ‘এ ধরনের ছবি যদি মাসে দুটো করে থাকে, সিনেমা ব্যবসার জন্য আর কিছু লাগে না। গত ছয় মাসে প্রথম ব্যবসাসফল ছবি এটি।’ ঢাকার শ্যামলী সিনেপ্লেক্সেও তিন সপ্তাহ ধরে চলছে পাসওয়ার্ড। হলটির ব্যবস্থাপক আহাসানুল্লাহ বললেন, ‘এখন তো চালানোর মতো আর কোনো ছবি নেই। তাই তিন সপ্তাহ ধরে এটিই চালাচ্ছি।’

কাটতে পারে হতাশা

ঝিমিয়ে থাকা চলচ্চিত্রপাড়া আগামী ছয় মাসে জেগে উঠতে পারে। কাটতে পারে হতাশা। ঈদুল আজহা থেকে শুরু করে বছরের বাকি অংশে বেশ কয়েকটি বড় বাজেট, ভালো গল্প, ভালো পরিচালক ও ভালো অভিনয়শিল্পীর ছবি মুক্তির কথা আছে। এর মধ্যে কিছু ছবি প্রস্তুত হয়ে আছে, কিছুর শুটিং চলছে। মুক্তির জন্য একেবারে প্রস্তুত ছবিগুলো হলো শাকিব খান, নুসরাত ফারিয়া ও রোদেলা জান্নাত অভিনীত শাহেনশাহ; শাকিব-বুবলীর একটু প্রেম দরকার, আরিফিন শুভ-বিদ্যা সিনহা মিম অভিনীত সাপলুডু, আরিফিন শুভ-ঐশী অভিনীত মিশন এক্সট্রিম, মাহিয়া মাহি অভিনীত অবতার ও রোশান-ববির বেপরোয়া। শুটিং চলছে শাকিব-বুবলীর মনের মতো মানুষ পাইলাম না, সিয়াম-পূজার শান, সিয়াম-পরীমনির বিশ্বসুন্দরী, জয়া আহসানের বিউটি সার্কাস, মাহিয়া মাহির আমার মা আমার বেহেশত ইত্যাদি। প্রযোজক ও পরিচালক সূত্রে জানা গেছে, ঈদুল আজহায় শাহেনশাহ, বেপরোয়া ও মনের মতো মানুষ পাইলাম না ছবি তিনটি মুক্তির মধ্য দিয়ে বদলে যেতে পারে ঢালিউডের এ বছরের হিসাব-নিকাশ।

প্রত্যাশা যাঁদের ঘিরে

আগামী ছয় মাসে মুক্তির তালিকায় থাকা ছবি নিয়ে আশাবাদী মনপুরা ও স্বপ্নজালখ্যাত পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম। তিনি বলেন, ‘আগামী ছয় মাসে যেসব সিনেমা মুক্তির প্রক্রিয়া চলছে, সেগুলোর মধ্যে দু-তিনজন পরিচালকের এটাই প্রথম ছবি। তাই যাঁরা প্রথম কাজ করেন, তাঁরা নিজের সবটুকু ঢেলে দিয়েই সেরা কাজটি দেওয়ার চেষ্টা করেন। এ ছাড়া আরও যে পরিচালকদের ছবি এ বছর আসতে যাচ্ছে, তাঁরা পরীক্ষিত। সুতরাং সব মিলে প্রত্যাশা করতেই পারি, বিগত ছয় মাসের চেয়ে দেশি চলচ্চিত্রের আগামী ছয় মাস ভালো কাটবে।’

বাণিজ্যিক ঘরানার বাইরে গিয়ে আগামী ছয় মাসে বেশ কয়েকজন নামী পরিচালক ভিন্নধারার হাফ ডজন সিনেমা নিয়ে আসতে যাচ্ছেন। এর মধ্যে আছে মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর শনিবার বিকেল, মাসুদ হাসান উজ্জ্বলের ঊনপঞ্চাশ বাতাস, তানিম রহমান অংশুর ন ডরাই, নুরুল আলম আতিকের মানুষের বাগান ও ১১ জন তরুণ নির্মাতার ইতি, তোমার ঢাকা। ছবির পরিচালকেরা জানিয়েছেন, ছয় মাসের মধ্যে ছবিগুলো মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তাঁদের। এরই মধ্যে কয়েকটি ছবি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে এবং প্রশংসাও পেয়েছে, জিতেছে পুরস্কারও। আর এর মধ্য দিয়েই বোঝা যায়, বিগত ছয় মাসের চেয়ে আগামী ছয় মাস সিনেমাপাড়ায় আলো ছড়াবে।

১. পাসওয়ার্ড ছবিতে শাকিব খান২. প্রেম আমার ২ ছবিতে পূজা ও অদ্রিত৩. আরিফিন শুভর দুটি ছবি আসতে পারে বছরের শেষ ভাগে৪. ছাড়পত্র পেলে মুক্তি পাবে জাহিদ হাসান অভিনীত শনিবার বিকেল৫. মিম অভিনীত সাপলুডু এ বছরই মুক্তি পাবে৬. ফেব্রুয়ারিতে মুক্তি পাওয়া তিশা–সিয়াম অভিনীত ফাগুন হাওয়ায় প্রশংসা কুড়ায়৭. মার্চে যদি একদিন ছবি দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক হয় তাহসানের, সঙ্গে ছিলেন ভারতের শ্রাবন্তী