ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৭

ঈদযাত্রায় রেলওয়ে স্টেশনের প্রশংসনীয় উদ্যোগ

https://www.jugantor.com/national/184734/ঈদযাত্রায়-রেলওয়ে-স্টেশনের-প্রশংসনীয়-উদ্যোগ
BY  যুগান্তর রিপোর্ট ০৩ জুন ২০১৯, ১৩:২১ | অনলাইন সংস্করণ
কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে মেডিকেল ক্যাম্পের চিত্র। ছবি: সংগৃহীত নাড়ির টানে ঢাকা থেকে বাড়ি ফেরা মানুষের দুর্ভোগের কমতি নেই। বাড়ি ফেরা মানুষের জন্য ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয় প্রতি বছরই স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে বিশেষ করে শিশু ও প্রবীণ যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমমাত্রায় পৌঁছে।

ঈদযাত্রার এই দুর্ভোগে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। কিন্তু যাত্রাপথে অসুস্থ হলে তাকে দ্রুত চিকিৎসাসেবা দুরূহ বিষয়।এবার ট্রেনের যাত্রাপথে অসুস্থ হলে নেই কোনো ভয়! মানবিকতার অনন্য উদ্যাগ নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে হাসপাতাল।

এবারের ঈদুল ফিতরে বাড়ি ফেরা মানুষকে সেবা দিতে পাঁচ দিনব্যাপী বিশেষ মেডিকেল ক্যাম্প করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে হাসপাতাল।

তাদের এমন উদ্যোগ প্রথম হলেও যাত্রীদের প্রশংসা কুড়াচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। যদিও উন্নত বিশ্বে এমন সেবা পাওয়া নাগরিকের অধিকার। ৩১ মে থেকে আগামী ৪ জুন পর্যন্ত চলবে এ মেডিকেল ক্যাম্প। শুধু চিকিৎসাসেবাই নয়, বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে ওষুধও।

সরেজমিন রাজধানীর কমলাপুর ও বিমানবন্দর রেলস্টেশন ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন রেলওয়ে হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জগামী কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেসের যাত্রী ও কিচেন টু ফার্মের ডিরেক্টর আসাদুল্লাহ গালিব বলেন, ট্রেনের সিডিউল বিড়ম্বনার কারণে যে কেউ অসুস্থতাবোধ করতে পারেন। এ সময় তাকে ট্রিটমেন্ট করানোর কাজটা খুবই কঠিন। নিঃসন্দেহে রেলওয়ের এ উদ্যোগটা আমরা প্রশংসা করি।

প্ল্যাটফর্মে থাকা রংপুরের যাত্রী সোলায়মান জানান, হঠাৎ বমি ও অসুস্থতাবোধ করার পর তিনি ওই মেডিকেল ক্যাম্পের শরণাপন্ন হন। খুব সহজেই চিকিৎসা পেয়েছেন তিনি। পরে তাকে ওষুধও দেয়া হয়।

এমন হাজারো বাড়ি ফেরা মানুষকে চিকিৎসা দিয়ে হাসিমুখে বাড়ি পৌঁছাতে সাহায্য করছেন রেলওয়ের মেডিকেল ক্যাম্পের চিকিৎসকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চালু থাকে মেডিকেল ক্যাম্প। প্রথম দিন কমলাপুর রেলস্টেশনে ৪৫ যাত্রী অসুস্থ হয়ে এ সেবা নেন। আর বিমানবন্দরে অসুস্থ হওয়া ৩০ যাত্রী এ সেবা পেয়েছেন। এর পর থেকে ক্যাম্পে চিকিৎসাসেবা পাওয়া যাত্রীর হার বাড়ছে।

ঢাকা বিমানবন্দর রেলস্টেশনে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এখানে চিকিৎসকদের জন্য মেডিকেল ক্যাম্পের যে পরিবেশ থাকা প্রয়োজন সেটি নেই। বিশেষ করে চিকিৎসকদের বসারও তেমন সুবিধা নেই। আলাদা টেবিল না থাকায় রেলওয়ের প্ল্যাটফর্মের নিজস্ব ছোট্ট টেবিলে রাখা হয়েছে ওষুধপাতি। সেখানেই প্লাস্টিকের টুলে বসে যাত্রীরা সেবা নিচ্ছেন।

প্ল্যাটফর্মের ভেতরে একটি ছোট্ট প্ল্যাটফর্মে চেয়ারে বসে যত্নসহকারে রোগী দেখছেন জামালপুর রেলওয়ে হাসপাতাল থেকে আসা চিকিৎসক ডা. আব্দুল্লাহ আল সালেহীন।

তিনি যুগান্তরকে বলেন, মানবিক দায়বদ্ধতা থেকেই রেলওয়ে হাসপাতাল এ উদ্যোগ নিয়েছে।

বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে, প্রশংসনীয় এ উদ্যোগটি চালুর নেপথ্যে রয়েছেন রেলওয়ে হাসপাতালের বিভাগীয় চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. ইবনে সফি আবদুল আহাদ। তিনিই সাধারণ যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘবের কথা চিন্তা করে এ মেডিকেল ক্যাম্প করার উদ্যোগ নেন।

রেলওয়ে হাসপাতালের বিভাগীয় চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. ইবনে সফি আবদুল আহাদের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, আমরা এর আগেও বিভিন্ন মেডিকেল ক্যাম্প সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করেছি। দেশের বিভিন্ন বড় স্টেশনেও এ সেবা চালু হয়েছে।