ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৭

রোজায় ডায়াবেটিস রোগীদের ওষুধ সেবনে করণীয়

https://www.ntvbd.com/health/251797/রোজায়-ডায়াবেটিস-রোগীদের-ওষুধ-সেবনে-করণীয়
BYফিচার ডেস্ক
১৪ মে ২০১৯, ১৭:৩০

একটু সমন্বয় করে ওষুধ সেবন করলে ডায়াবেটিস রোগীরাও রোজা রাখতে পারেন। ছবি : সংগৃহীত ডায়াবেটিস রোগীরা রোজা রাখা নিয়ে অনেক সময় দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়েন। তবে একটু সমন্বয় করে ওষুধ সেবন করলে টাইপ টু-এর ডায়াবেটিস রোগীরা সুস্থভাবেই রোজা রাখতে পারেন।

রোজায় ডায়াবেটিস রোগীদের ওষুধ সেবনে করণীয়, বিষয়ে এনটিভির নিয়মিত আয়োজন স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ৩৪৩৭তম পর্বে কথা বলেছেন ডা. মো. মাহিদ খান। বর্তমানে তিনি ইস্পাহানি চক্ষু হাসপাতালের মেডিসিন ও কার্ডিওলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত।

প্রশ্ন : রোজার দিনে ওষুধ নেওয়ার ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস রোগীদের কী পরামর্শ দেওয়া হয়? উত্তর : ডায়াবেটিস সাধারণত দুই ধরনের বেশি হয়। টাইপ ওয়ান ও টাইপ টু। টাইপ ওয়ান হলো যাদের শরীরে কোনো ইনসুলিন থাকে না। তাঁরা সম্পূর্ণ ইনসুলিনের ওপর নির্ভরশীল। কেউ একটু স্থূল হলো, খাওয়া-দাওয়া একটু বেশি হলো, এসব ক্ষেত্রে দেখা যায় টাইপ টু ডায়াবেটিস। দেখা গেল, তাঁর ইনসুলিন লাগে না। লাগলেও কম পরিমাণ লাগে, ওরাল হাইপোগ্লাইসেমিয়া বা ওষুধের মাধ্যমে সে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। এই ক্ষেত্রে যেকোনো রোগী ধরেন সকালবেলা সে ৩০ ইনসুলিন নিত, রাতের বেলা ২০ ইনসুলিন নিত। সেক্ষেত্রে আমরা কি করি, সে ইফতারের সময় ৩০ নেবে। আর সেহরির সময়, রাতে যে ২০ নিত এর অর্ধেক নেবে। সে সকালবেলা যে ওষুধ খেত, ডায়াবেটিসের জন্য সেটি ইফতারের আগে খাবে। ভোর রাতে, রাতে যে পরিমাণ খেত তার অর্ধেক খাবে। সেহরির আগে ওষুধটা অর্ধেক হয়ে যাবে। রোজা রেখেও সে দিনেরবেলা ব্লাড সুগার টেস্ট করতে পারবে। দেখতে হবে, তার হাইপোগ্লাইসেমিয়া হলো কি না বা হাইপার গ্লাইসেমিয়া হলো কি না। বা তার যদি খারাপ লাগে সেই ক্ষেত্রে চেক করতে পারবে। এই ক্ষেত্রে রোজা ভাঙবে না।