ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৭

কোলেস্টেরলের ওষুধ কি সবসময় খেতে হয়?

https://www.ntvbd.com/health/252399/কোলেস্টেরলের-ওষুধ-কি-সবসময়-খেতে-হয়
BYফিচার ডেস্ক
১৮ মে ২০১৯, ১৪:৪৬

কোলেস্টেরলের বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেছেন ডা. মো. তৌফিকুর রহমান ও ডা. সানজিদা হোসেন । ছবি : এনটিভি কোলেস্টেরল মোমের মতো, চর্বি জাতীয় উপাদান। কোলেস্টেরল চার ধরনের। টোটাল কোলেস্টেরল, লো ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন বা এলডিএল, হাইডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন বা এইচডিএল ও ট্রাইগ্লিসারাইড কোলেস্টেরল।

শরীরে বাজে কোলেস্টেরল বা এইচডিএলের মাত্রা বাড়লে রক্তনালি ব্লক হয়। তাই বাজে কোলেস্টেরল কমাতে নিয়মিত ওষুধ খাওয়া জরুরি। তবে কোলেস্টেরলের ওষুধ কি সবসময় খেতে হবে?

এ বিষয়ে এনটিভির নিয়মিত আয়োজন স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ৩৪২৭তম পর্বে কথা বলেছেন ডা. মো. তৌফিকুর রহমান। বর্তমানে তিনি কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে কার্ডিওলজি বিভাগে বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত।

প্রশ্ন : সারা জীবন কি ওষুধ খেতে হবে? এ বিষয়ে আপনার পরামর্শ কী? উত্তর : কোলেস্টেরল বাড়লে রক্তনালি ব্লক হয়। ব্লকের পরিমাণ হয়তো ৩০ শতাংশ। ভবিষ্যতে বাড়তে বাড়তে ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ হবে। এই যে রক্তনালির মধ্যে ব্লক রয়েছে, এটিকে কি আমরা বাড়তে দেব? ৭০ ভাগের বেশি না হলে কিন্তু আমরা রিং লাগাব না। বাইপাস সার্জারিও করব না। তাহলে এসব রোগীকে আমরা কী দেব? তাঁর ব্লক যেন না বাড়ে তাই রক্তের কোলেস্টেরল কমানোর যে ওষুধগুলো সেগুলো উচ্চ মাত্রায় দিতে হবে। এর উদ্দেশ্য একটাই, আমাদের রক্তনালিতে যে চর পড়েছে, এগুলো যেন ভবিষতে না বাড়ে, যেন রিং পরা বা বাইপাস সার্জারি করার মতো পরিস্থিতি না হয় অথবা যাঁর রিং বসানো রয়েছে তাঁর রিঙের ভেতর যেন ব্লক না হয় বা যাঁর বাইপাস সার্জারি করা হয়েছে, তাঁর যেন আবার ব্লক না হয়, এজন্য ওষুধ দিতে হবে। ভবিষতে যেন ব্লক না হয়, এর প্রতিরোধে ওষুধ খাওয়া প্রয়োজন। এ জন্য সবসময় ওষুধ খেতে হবে।