ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২ কার্তিক ১৪২৬

রোববার মেডিকেল বোর্ডের সভার পর জানা যাবে খালেদার শারীরিক অবস্থা

http://www.rtvonline.com/politics/52665/রোববার-মেডিকেল-বোর্ডের-সভার-পর-জানা-যাবে-খালেদার-শারীরিক-অবস্থা
BYআরটিভি অনলাইন রিপোর্ট|  ০৬ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:২৮ | আপডেট : ০৬ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:৪২

শনিবার সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হারুন-অর রশিদ। বিএনপির কারাবন্দি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে গঠিত ৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড আগামীকাল রোববার দুপুরে সভা করবে। এরপর খালেদা জিয়ার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা শুরু করবেন তারা।

হাসপাতালের সি ব্লকের কনফারেন্স রুমে শনিবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হারুন-অর রশিদ।

তিনি আরও বলেন- ‘আগামীকাল (রোববার) দুপুর ১টার দিকে মেডিকেল বোর্ডের সভা হবে। এরপর খালেদা জিয়ার শরীরের অবস্থা সম্পর্কে জানা যাবে।’

আগের মেডিকেল বোর্ডের দুই সদস্য অধ্যাপক অধ্যাপক ডা. জলিলুর রহমান চৌধুরী ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. বদরুন্নেসার সঙ্গে এই মেডিকেল বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করা বাকি তিন চিকিৎসক হলেন— বিএসএমএমইউ কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক সজল ব্যানার্জি, রিউমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ আতিকুল হক ও অর্থোপেডিক বিভাগের অধ্যাপক নকুল কুমার দত্ত।

এর আগে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বেলা ৩টা ৪০ মিনিটের দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ৭১৬০ নম্বর গাড়িতে করে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে আনা হয়।

------------------------------------------------------- আরও পড়ুন : বিএনপির দুর্গে আ.লীগের শক্ত অবস্থান -------------------------------------------------------

খালেদা জিয়া এলে বৃষ্টির মধ্যেই আগে থেকে অবস্থান নেয়া বিএনপির নেতাকর্মীরা স্লোগান দিতে থাকেন। র‍্যাব-পুলিশের কড়া পাহারার মধ্যে প্রধান ফটক থেকে তাকে হাসপাতালের কেবিনে তোলা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. অধ্যাপক জলিলুর রহমান চৌধুরীর অধীনে তাকে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন- ‘খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে আনার বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছে সহায়তা চেয়েছিল। আমরা সার্বিক নিরাপত্তা দিয়েছি। এখন থেকে তিনি হাসপাতালের ৬১২ নং কেবিনে থাকবেন। ডিএমপির পক্ষ থেকে ৬১১ ও ৬১২ নং কেবিনে সার্বিক নিরাপত্তা দেয়া হবে। এর মধ্যে তাকে কোথাও নেয়া হলে, আসা-যাওয়ার পথেও কারা কর্তৃপক্ষের চাহিদা অনুযায়ী ডিএমপি নিরাপত্তা দেবে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএসএমএমইউর এক কর্মকর্তা বলেন- ‘কারাবিধি অনুসারে খালেদা জিয়ার জন্য ডিলাক্স কেবিন ইস্যু করা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া ৬১২ নম্বর কেবিনে থাকলেও তার জন্য পাশের ৬১১ নম্বর কেবিনটিও বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ওই কক্ষে তার সহকারী বা কারা নিরাপত্তারক্ষীরা থাকতে পারবেন।’

হাসপাতালের কেবিন ব্লকের ছয়তলার ৬১২ নম্বর কক্ষটি ডিলাক্স কেবিন নামে পরিচিত। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কেবিনটির ভেতরে দুটি খাট, টিভি ও অ্যাটাচড বাথরুম রয়েছে। কক্ষের পাশেই রয়েছে এক সেট সোফা। এছাড়া এটির ভেতরে কলিং বেল রয়েছে, যাতে করে রোগী প্রয়োজন হলে নার্স বা অন্য কাউকে ডাকতে পারেন।

গেল ৪ অক্টোবর খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য দ্রুত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে পাঁচ সদস্যের আরেকটি মেডিকেল বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেন আদালত।

গেল ৭ এপ্রিল রাজধানীর শাহবাগের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের দণ্ড দেন আদালত। সেই থেকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরান কারাগারে বন্দি রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

আরও পড়ুন :

পি