ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ ৮ কর্মকর্তার জবাব চেয়েছে হাইকোর্ট

http://www.kalerkantho.com/online/Court/2018/06/22/649788
BYলক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর ও সদরের একাংশ) ও লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) সংসদীয় আসনের সীমানা পুনঃনির্ধারণে উচ্চ আদালতে (হাইকোর্ট) রীট করা হয়েছে। সীমানা পুনঃনির্ধারণে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গেজেট বিজ্ঞপ্তি কেন আইন বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ ৮ কর্মকর্তাকে জবাব দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২১ জুন) দুপুরে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও শহিদুল করিমের সমন্বিত অবকাশকালীন বেঞ্চ রীটটি আমলে নিয়ে এ নির্দেশ প্রদান করেন। সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবী ও লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বাসিন্দা মো. সালাহ উদ্দিন রিগ্যানের আবেদন করা রীটের প্রেক্ষিতে এ আদেশ দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলতি বছরের ৩০ এপ্রিল নির্বাচন কমিশনের কর্তৃক গেজেট বিজ্ঞপ্তিতে সংসদীয় আসনগুলোকে অখন্ড উপজেলা, প্রশাসনিক সুযোগ-সুবিধা ও জনসংখ্যার বিভাজন নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। কিন্তু লক্ষ্মীপুর-২ আসনের মধ্যে সদর উপজেলার ৯ টি ইউনিয়ন সংযুক্ত থাকায় আঞ্চলিক অখন্ডতা রয়েছে। এ ছাড়া এসব ইউনিয়নের জনগণ রায়পুর উপজেলার প্রশাসনিক কোন সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করেন না এবং যাতায়াত নেই। এখানে জনসংখ্যার বিভাজনও রয়েছে। তবে কেন লক্ষ্মীপুর-২ ও লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সীমানা পুনঃনির্ধারণ করা হবে না জানতে চেয়ে হাইকোর্টে রীট করা হয়।

আদালত সূত্রে জানায়, সীমানা পুনঃনির্ধারণে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গেজেট বিজ্ঞপ্তি কেন আইন বহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, সচিব, যুগ্ম-সচিব, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা, জেলা সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা, রায়পুর ও সদর উপজেলা সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তাকে জবাব দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

রীটকারী আইনজীবী মো. সালাহ উদ্দিন রিগ্যান বলেন, রায়পুর উপজেলাকে আমরা একটি স্বতন্ত্র সংসদীয় আসন চাই। এ জন্য নির্বাচন কমিশনের নিয়মানুযায়ী আমি আদালতে রীট করেছি। আদালত প্রধান নির্বাচন কমিশনসহ ৮ কর্মকর্তাকে জবাব দেওয়ার জন্য বলেছেন।