ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৬

তাড়াশে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১০

https://www.kalerkantho.com/online/country-news/2020/05/28/916285
BYতাড়াশ-রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে যৌতুক হিসেবে দেওয়া গরু নিয়ে সৃষ্ট বিরোধের সালিশ নিয়ে দুই গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে অন্তত ১০ ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন। বুধবার রাতে উপজেলার সগুনা ইউনিয়নের ধাপ তেতুলিয়া গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, তিন বছর আগে সগুনা ইউনিয়নের প্রতিরামপুর গ্রামের চাঁদ আলীর মেয়ে চাম্পা খাতুনের পাশ্ব¦বর্তী ধাপতেতুলিয়া তেলিপাড়া গ্রামের আলাল ফকিরের ছেলে রাশিদুলের সাথে বিয়ে হয়েছিল। ওই বিয়েতে চাম্পা খাতুনের বাবা তাকে একটি গরু প্রদান করেন। এক বছর আগে চম্পা খাতুন মারা যায়। সম্প্রতি চম্পার বাবা সেই গরুটি বিক্রিও করে দেন। এ নিয়ে তার জামাতা রাশিদুল ইসলামের পরিবারের সাথে বিরোধ দেখা দেয় এবং তারা ক্ষিপ্ত হয়ে চম্পার বাবার একটি গরু মাঠ থেকে জোর পুর্বক বাড়িতে নিয়ে আসে।

বিষয়টি মিমাংসার জন্য গ্রামে একাধিকবার সালিশও বসে । কিন্ত সালিশে কোন সুরাহা হয়নি। ফলে আবারও আজ বুধবার সন্ধ্যায় জামাতা রাশিদুলের বাড়িতে বিষয়টি মিমাংসার জন্য দুটি গ্রামের লোকজন নিয়ে শালিস আহবান করা হয়। সে মোতাবেক সন্ধ্যায় সালিশ বসলে মৃত গৃহবধূর চাচা বেলাল হোসেন এক পর্যায়ে জামাতা রাশিদুলের গোয়ালে থাকা তার ভাইয়ের মাঠ থেকে আনা সেই গরু জোর পুর্বক নিয়ে যেতে থাকেন।

এ নিয়ে ওই সালিশে উভয় পক্ষের মধ্যে বাগ বিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষ লাঠিসোঁটা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের জাহিদুল ইসলাম, রাশিদুল ইসলাম, ডাবলু, বেলাল হোসেন এবং মজিবুর রহমানসহ অন্তত ১০ ব্যক্তি আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে জাহিদুল ইসলাম, রাশিদুল ইসলামের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ থানার ওসি মাহবুবুল আলম জানান, সংঘর্ষের বিষয়টি তিনি স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে জেনেছেন। তবে এখনো পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি।