ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৭

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে মহিলা দলের মিছিল

https://www.ntvbd.com/bangladesh/261075/খালেদা-জিয়ার-মুক্তির-দাবিতে-মহিলা-দলের-মিছিল
BYনিজস্ব প্রতিবেদক
১২ জুলাই ২০১৯, ১৬:৩৯

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এবং বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে মিছিল করেছেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের নেতাকর্মীরা। ছবি : ফোকাস বাংলা গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এবং বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মিছিল করেছেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের নেতাকর্মীরা।

আজ শুক্রবার সকাল ১০টায় মহিলা দলের নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণে একটি বিক্ষোভ মিছিল নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হয়। নাইটিংগেল মোড় ঘুরে আবারও নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। মিছিলে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা দলের সভানেত্রী রাজিয়া আলিম, উত্তরের সভানেত্রী পেয়ারা মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক আমেনা বেগম, সহসাংগঠনিক সম্পাদক তাহমিনা শাহীন, মিলি জাকারিয়া, কেন্দ্রীয় মহিলা দলের শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিনা বেগম মিনি, স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জেসমিন জাহান, সহদপ্তর সম্পাদক গুলশান আরা মিতা, সদস্য স্বপ্না আহমেদসহ কয়েকশ নেতাকর্মী অংশ নেন।

মিছিল শেষে নাইটিংগেল মোড়ে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন রুহুল কবির রিজভী। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের জনগণ যেন সোচ্চার হতে না পারে, এ জন্য তাঁকে জেলখানায় বন্দি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের জনগণ যাতে বর্তমান অবৈধ সরকারের এই জুলুমের শাসনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে না পারে, সে জন্য তাঁকে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের ১০ মাস আগেই মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারান্তরীণ করা হয়েছে।’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব আরো বলেন, ‘মধ্যরাতের ভোটের সরকার বলেই বর্তমান অবৈধ শাসকগোষ্ঠী জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকারকে মাটিচাপা দিয়ে বিএনপিসহ সব বিরোধী দলকে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে একদলীয় বাকশালী শাসন প্রতিষ্ঠা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। কিন্তু জনগণ আওয়ামী শাসকগোষ্ঠীর লালিত অলীক-অবাস্তব স্বপ্ন কোনোদিনই বাস্তবায়িত হতে দেবে না। দেশের আপামর জনগণের আস্থাভাজন নেত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করে মানুষের মৌলিক মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয়তাবাদী শক্তি দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। আমি আবারও অবিলম্বে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।’

এ সময় গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বর্তমান মধ্যরাতের ভোটের সরকার জনগণের ভোটে বিশ্বাসী না হওয়ার কারণে তারা জনগণ নয় বরং নিজেদের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের নীতিতেই বিশ্বাস করে। বর্তমান ফ্যাসিবাদী সরকার জনগণের নার্ভ বুঝতে পেরেছে যে, জনগণ আওয়ামী দুঃশাসনের কারণে তাদেরকে ঘৃণা করে। আর ঘৃণা করার প্রতিশোধের অংশ হিসেবে ধারাবাহিক জুলুম চালানো হচ্ছে জনগণের ওপর। সেটিরই আরো একটি নির্মম বহিঃপ্রকাশ ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি। জনগণের ওপর জুলুম, শোষণ ও নির্যাতন চালিয়ে দেশের সম্পদ লুট এবং জনগণের রক্ত চুষতে একের পর এক গণবিরোধী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে যাচ্ছে বর্তমান অবৈধ আওয়ামী সরকার।’

রিজভী আরো বলেন, “জনগণের ওপর নিপীড়ন চালিয়ে অবৈধ অর্থ উপার্জনের দ্বারা সরকারের লোকজন ‘আঙুল ফুলে কলাগাছ’ হয়ে উঠছে। আর এই অনৈতিক সুযোগ করে দিচ্ছে সরকার। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আমরা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি বন্ধ করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।”

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হলে জনগণের উত্তাল আন্দোলন ও ক্ষোভে-বিক্ষোভে শামিল হতে বিএনপি দৃঢ় অঙ্গীকারবদ্ধ বলেও হুঁশিয়ারি দেন রিজভী।