ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৭
BYক্রীড়া প্রতিবেদক
০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২০:৪৫

গত জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে বাংলাদেশ ক্যারিবীয়দের ২-১ ব্যবধানে হারাতে পারলে দেশের মাটিতে কেন নয়? দেশের মাঠে রেকর্ড-পরিসংখ্যান ভালো থাকার পরও লিটন দাস অবশ্য নিজেদের ফেবারিট মানতে রাজি নন। গত জুলাইয়ে টেস্ট সিরিজে ধবলধোলাইয়ের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। শুধু ঘুরেই দাঁড়ায়নি, ক্যারিবীয়দের ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে সিরিজও জিতেছিল। এবার দেশের মাঠে ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশকে নির্দ্বিধায় ফেবারিট বলাই যায়। বলা যায়, এ কারণে গত চার বছরে বাংলাদেশ আটটি ওয়ানডে সিরিজে হেরেছে মাত্র দুটিতে, জিতেছে বাকি ছয়টিতেই। এই ছয়টির চারটিই আবার ২০১৫ সালে।

দেশের মাঠে এখন টেস্টেই যেখানে বাংলাদেশ শক্তিশালী প্রতিপক্ষ, ওয়ানডেতে নিঃসন্দেহে আরও বেশি ভয়ংকর। পরিসংখ্যান-রেকর্ড যেটাই বলুন, লিটন অন্তত নিজেদের ফেবারিট বলতে রাজি নন এই সিরিজে, ‘নিজেদের ফেবারিট বলব না। ভালো খেলতে হবে। ওয়ানডেতে ওরা শক্তিশালী দল। চেষ্টা থাকবে প্রতিটি ম্যাচ জেতার। দেশের মাটিতে খেলা বলে একটু সুবিধা আমরা পেতে পারি হয়তো।’

আগ থেকে যেন আত্মতুষ্টিতে না পেয়ে বসে কিংবা নিজেদের ফেবারিট বলে অহেতুক চাপ জেঁকে না বসে, সে কারণেই হয়তো লিটন নিজেদের ফেবারিট বলতে চান না। কিন্তু প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন আশাবাদী টেস্ট সিরিজের মতো ওয়ানডেতেও ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ভালো করবে বাংলাদেশ, ‘আমাদের প্রস্তুতি ভালোই হয়েছে। উইন্ডিজ কিন্তু ওয়ানডেতে ভালো দল। সংক্ষিপ্ত সংস্করণে ওদের অনেক পরীক্ষিত খেলোয়াড় আছে। সে হিসেবে আমাদের জন্য এটি অনেক চ্যালেঞ্জিং একটি সিরিজ। (বিকেএসপিতে আজ) প্রস্তুতি ম্যাচটি ভালো হওয়ায় আমরা সন্তুষ্ট। আমাদের কিছু খেলোয়াড় যেমন তামিম ইকবাল অনেক দিন পরে খেলছে, সেঞ্চুরি করেছে। এটা অনেক বড় পাওয়া। সব মিলিয়ে দল পুরোপুরি প্রস্তুত। আশা করি, আমরা টেস্ট সিরিজের মতো ওয়ানডে সিরিজেও ভালো করব।’

কদিন আগে মাশরাফিও বলেছেন, ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনেক শক্তিশালী দল। তবে টেস্ট সিরিজের আত্মবিশ্বাস ভীষণ কাজে দেবে তাঁদের, ‘সংস্করণ যত ছোট হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তত ভালো দল। অবশ্যই ভালো একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আশা করছি। টেস্ট সিরিজ জেতার পর খেলোয়াড়েরা ভালো অবস্থায় আছে। এটা কাজে লাগাতে পারলে ভালো হবে।’