ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৭

মিজান-মোয়াজ্জেম যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার

https://www.ppbd.news/https:/ppbd.news/crime/110449
BYনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ:  ১৩ জুন ২০১৯, ০২:৫৪ | আপডেট : ১৩ জুন ২০১৯, ০৩:০৫

পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান ও ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন ঢাকায়ই আছেন। এরা যেকোনো সময় গ্রেফতার হবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এমনটাই বার্তা দিয়েছেন। ক্ষমতার অপব্যবহার এবং শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকান্ডে জড়িত এবং সর্বশেষ দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) ঘুষ প্রদানের বিষয়ে নিজের স্বীকারোক্তির কারণেই আইনের আওতায় নেওয়া হচ্ছে ডিআইজি মিজানকে। তবে গত ১৫ মাস আগে পুলিশ সদর দফতরের উচ্চ পর্যায়ের অনুসন্ধান কমিটির প্রতিবেদনে ডিআইজি মিজানের শৃঙ্খলা পরিপন্থী ও ক্ষমতার অপব্যবহারের বিষয়টি প্রমাণিত হলেও তাতে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করছেন খোদ পুলিশ কর্মকর্তারাই। অন্যদিকে, বহুল আলোচিত ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহানের হত্যার ঘটনায় ভিডিও ফাঁসের অপরাধে ওসি মোয়াজ্জেমকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বুধবার কারা অধিদফতরে উদ্ভাবনী মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, পুলিশের ডিআইজি মিজান ঘুষ কেন দিয়েছে? নিশ্চয়ই তার কোনো দুর্বলতা আছে। তা না হলে সে ঘুষ কেন দেবে? তার বিরুদ্ধে আগের অভিযোগের বিচার এখনো প্রক্রিয়াধীন। এর মধ্যে আবার ঘুষ কেলেঙ্কারি। ঘুষ দেওয়া-নেওয়া দুটোই অপরাধ। ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের দেশের বাইরে যাওয়ার সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যে কোনো সময় সে গ্রেফতার হবে।

কেউ কেউ বলছেন, ডিআইজি মিজানের ক্ষমতার কাছে সবকিছুই তুচ্ছ। তবে শিগগিরই ঘুষ প্রদান নিয়ে ডিআইজি মিজানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে দুদক। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ এলেই তাকে গ্রেফতারের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে না দুদক। ঘুষের বিষয় নিয়ে মিডিয়ায় ভুলভাবে তথ্য এসেছে।

চলতি বছরের ৬ এপ্রিল সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাতকে নৃশংসভাবে আগুনে পোড়ানোর পর ১০ মে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর আগে থানায় ওসির কাছে দেওয়া তার বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম। এ ঘটনায় ওসির বিরুদ্ধে মামলা হয় ঢাকায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে। ওই মামলায় ২৭ মে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনাল এই পুলিশ কর্মকর্তাকে গ্রেফতারে পরোয়ানা জারি করে।

পিপিবিডি/এআর