ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯, ১১ মাঘ ১৪২৬

বিয়ে করলেই চুক্তি বাতিল নারী ফুটবলারদের!

http://www.somoyerkonthosor.com/2019/01/13/315084.htm
January 13, 2019January 13, 2019 by Robiul Islam

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- আগামী পাঁচ বছর চুক্তির আওতায় থাকা নারী ফুটবলাররা বিয়ে করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন বাফুফের নারী ফুটবল উইংয়ের চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরন।

যদিও বর্তমান ক্যাম্পে থাকা অনেক নারী ফুটবলারের বয়সই ১৫-১৮। রাষ্ট্রীয় আইন অনুযায়ী ১৮ বছর ও তার ঊর্ধ্ব বয়সী মেয়েরা বিয়ে করতে পারবে। কিন্তু রাষ্ট্রীয় আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাল বাফুফের এই কর্মকর্তা।

সম্প্রতি গণমাধ্যমে মাহফুজা আক্তার কিরন বলেন, চুক্তির আওতায় থাকা নারী ফুটবলাররা পাঁচ বছর বিয়ে করতে পারবেন না। এমনকি ক’দিনের মধ্যে ক্যাম্পে থাকা নারী ফুটবলারদের অভিভাবকদের ডেকে এনে আরও কিছু শর্তাবলি যুক্ত করে চুক্তি সই করানোর পরিকল্পনা করছে বাফুফে।

এদিকে নারী ফুটবলারদের নিয়ে বাফুফের এমন বক্তব্যে ক্রীড়াঙ্গনে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। উনার এমন অপরিণত কথায় ক্ষোভ ঝেড়েছেন অনেকেই। কেউ আবার কড়া প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বাংলাদেশের মহিলা ফুটবলে অগ্রণী ভূমিকা রাখা নারী ক্রীড়াবিদ ও রাষ্ট্রীয় ক্রীড়া পুরস্কার পাওয়া সাবেক ব্যাডমিন্টন তারকা কামরুন নাহার ডানা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদিকার কথা, ‘কোনো সংস্থারই উচিত নয় কারও ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ।

এটা একটা সাধারণ নির্দেশনা থাকতে পারে। কিন্তু তাই বলে কাগজ-কলম করে চুক্তি করা যায় না।’ পাশাপাশি তিনি নারীদের নিরাপত্তার কথাও বলেন, ‘সম্প্রতি ভারোত্তোলনে একটি কেলেংকারির ঘটনা ঘটেছে। এতে নারী ক্রীড়াবিদরা শঙ্কিত।

এমন সময় ফুটবল ফেডারেশনের এমন পদক্ষেপ অন্য ক্রীড়াবিদ ও ফেডারেশনগুলোর জন্য চাপ হিসেবে কাজ করতে পারে।’ ব্যক্তিগত বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার চেয়ে খেলোয়াড়দের শিক্ষার বিষয়ে জোর দিয়ে ডানা বলেন, ‘বাফুফে যদি মেয়েদের পড়াশোনা করায়, মেয়েদের শিক্ষিত করে তুলতে পারে- তাহলে মেয়েরা নিজেরাই নিজেদের সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। অন্য কারও কথায় প্ররোচিত হবে না।’

সাবেক তারকা অ্যাথলেট নেলী জেসমিনের কথা, ‘রাষ্ট্র কর্তৃক নিয়ম রয়েছে যে, ১৮ বছরের নিচে কোনো মেয়েকে বিয়ে করানো যাবে না। কিন্তু বাফুফে যে আইন করেছে তার ফাঁদে পড়তে পারে ১৮ বয়সের বেশি ফুটবলাররাও। যতই বলকু না কেন, বেতন কাঠামোর মধ্যে আনার জন্য তারা চুক্তি করছে। কিন্তু বিষয়টি সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকে ভালো হবে না।’