ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৬
BY  অনলাইন ডেস্ক ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২:২৭ | আপডেট : ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৩:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

এ যেন নারীদের জগৎ। এখানে থাকবেন শুধুই নারীরা। পুরুষদের সংস্পর্শ থেকে অনেক দূরে। তাই যাদের পুরুষ সংস্পর্শে একটু খুতখুতানি আছে, কিংবা এক ঘেয়েমি হয়ে আছে তারা ইচ্ছে করলেই এখানে কাটিয়ে আসতে পারেন কয়েকটা দিন। জায়গা আসলে সাগর ঘেরা একটি ভূখণ্ড, অবস্থান ফিনল্যান্ডে। নারীদের স্বাধীনতা ও আরাম-আয়েশের কথা মাথায় রেখে দ্বীপটি নির্মাণের উদ্যোগ নেন ‘সুপার শি’ নামের একটি লাইফস্টাইল ও নেটওয়ার্কিং ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা ক্রিস্টিনা রোথ।

ক্রিস্টিনার ধারণা, পুরুষের সান্নিধ্যে থাকার কারণে অনেক নারীই নিজেকে একটু আলাদা সময় দিতে পারেন না। তাই তিনি এমন একটি স্থান তৈরি করার পরিকল্পনা করেন যেখানে নারীরা খুব স্বাচ্ছন্দে ঘুরে বেড়াবেন। সময় দিতে পারবেন নিজেকে। বর্তমানে দ্বীপটির নির্মাণ কাজ চলছে।

গাছপালায় ঘেরা মনোরম এই দ্বীপটিতে নারীরা কয়েক দিন বা সপ্তাহের জন্য হলেও আরাম-আয়েশে থাকবেন বলে মনে করেন ক্রিস্টিনা। ফিনল্যান্ডের দক্ষিণের হেলসিঙ্কি শহর থেকে মাত্র ৯০ মিনিটের দূরত্বে দ্বীপটি গড়ে উঠেছে।

দ্বীপটিতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে আপনাকে বুকিং দিতে হবে। তবে পদ্ধতিটা একটু আলাদা। সেখানে থাকার জন্য আপনাকে প্রথমে সদস্য হওয়ার জন্য আবেদন করতে হবে। সে জন্য প্রথমেই দিতে হবে একটি পরীক্ষা। তবে ভয় পাওয়ার কিছুই নেই। আসলে পরীক্ষায় সাধারণ জ্ঞান, গণিত বা কঠিন কোনো বিষয়বস্তুর থাকবে না। শুধু নির্দিষ্ট একটি দিনে দ্বীপটির মালিকানায় থাকা ক্রিস্টিনার সঙ্গে ভিডিও চ্যাটিং অ্যাপ স্কাইপে ইন্টারভিউ দিতে হবে। এছাড়া আপনাকে হয়তো 'সোহো হাউস' নামক একটি মিডিয়া ক্লাবের মেম্বার হতে হবে কিংবা ক্লাবের কোন সদস্য থেকে সুপারিশ নিতে হবে।

আপনি যদি ভ্রমণের জন্য নির্বাচিত হন তাহলে এক সপ্তাহের মধ্যেই আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে। তবে পুরুষবিহীন দ্বীপটিতে ভ্রমণ মোটেও সহজলভ্য নয়। এজন্য আপনাকে গুণতে হবে তিন হাজার ৫০০ মার্কিন ডলার (প্রায় ৩ লাখ টাকা)।

সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক পোস্ট'কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ক্রিস্টিনা বলেন, আমি চাই না দ্বীপটিকে 'অভিজাত' হিসেবে দেখা হোক। এখন পর্যন্ত দ্বীপটিতে রোথ বান্ধবীরাই প্রথম ভ্রমণ করেছেন। তবে চলতি বছরের গ্রীষ্মকালের শুরুর দিকেই স্থানটি উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে সাধারণের জন্য।