ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬
BY  যুগান্তর রিপোর্ট ২৪ জুন ২০১৮, ২০:৪৮ | অনলাইন সংস্করণ
বিশ্বকাপ ফুটবল, ছবি সংগৃহীত চলছে বিশ্বযুদ্ধ ফুটবল। সারাবিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এখন নির্ঘুম রাত কাটচ্ছেন অনেক পুরুষ। দিনভর কর্মব্যস্ততার শেষে ম্যাচ দেখতে মাঝরাতেও টিভিতে চোখ রাখতেই হচ্ছে। সব খেলার সেরা ফুটবলের জন্য অনেক কিছুই ত্যাগ করা যায়। তবে ফুটবল খেলার জন্য এখন রাতে স্ত্রীর শয্যাসঙ্গী হচ্ছেন না অনেক স্বামী।

মেসি-নেইমারের পায়ের জাদুতে বুঁদ হয়ে থাকতে রাজি ঘণ্টার পর ঘণ্টা। কিন্তু রাত জেগে বিশ্বকাপ দেখার জন্য এখন ভাটা পড়েছে শয্যায়। সঙ্গিনীর সঙ্গে শয্যায় ‘স্যাটারডে নাইট’ সেলিব্রেট করার বদলে বাঙালির পছন্দের তালিকায় শীর্ষে এখন বিশ্বকাপ। খবর কলকাতা ২৪।

সারাদিন অফিসের পর বিশেষ মুহূর্তে আপনার স্ত্রী পেতে চায় সঙ্গ। আপনার এক ডাকের জন্য মুখিয়ে থাকেন। কিন্তু আপনার ধ্যান-জ্ঞান যে আব্দ্ধ ‘ইডিয়ট বক্স’-এ।

সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, পুরুষরা মনে করেন, ওয়ার্ল্ড কাপ চার বছরে একবার আসে। আর স্ত্রী তো রয়েইছেন৷ তার জন্য তাড়া কী?

‘ডুরেক্স’ এর এক সমীক্ষা জানাচ্ছে, ফুটবলের বিশ্বযুদ্ধের জন্য একাকীত্বে রাত কাটছে সঙ্গিনীর। বিশ্বকাপ চলার সময় প্রায় ৪০ শতাংশ পুরুষ বিছানার বদলে বেছে নিচ্ছেন বিশ্বকাপকে। আর স্ত্রীয়ের আদুরে ডাককে ফেরাতে বেছে নিচ্ছেন কিছু দুর্বল অজুহাত।

কেমন সেই অজুহাত? পুরুষদের ক্ষেত্রে কমন অজুহাত- ‘আজ শরীর খারাপ। মাথায় ব্যথা’। ‘আজ অফিসে খুব কাজের চাপ গিয়েছে, ভীষণ টায়ার্ড’।

যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্ত্রীর সতীন করবেন না ফুটবলকে। আপনার সহধর্মিণীকে বরং সত্যিটাই বলুন। বলুন, আজ খেলা দেখব। পারলে তাকেও সঙ্গী করুন খেলা দেখার। বুঝিয়ে দিন ফুটবলের খুঁটিনাটি।

চিনিয়ে দিন মুলার-রোবেনদের। বলে দিন ‘ফ্লাইং ডাচ’ কেন বলে ভ্যান পার্সিকে। প্রাইভেট সেক্টরে কর্মরতদের পক্ষে সময়টা আরও মারাত্মক। একদিকে স্ত্রী বা প্রেমিকার সঙ্গে কথা বলতে হবে, খেলাও দেখতে হবে আবার অফিসের চাপও বজায় থাকছে পুরোদমে। তাই অনেকেই মাথায় রাখতে পারছেন না সব একসঙ্গে।

অনেক সময় মেজাজ হারাচ্ছেন পুরুষরাও। এতে যৌন-জীবন ক্ষতিগ্রস্ত তো হচ্ছেই, কমছে স্বামী-স্ত্রীয়ের আন্ডারস্ট্যান্ডিংও।

চিকিৎসকদের বলছেন, একটানা রাত জেগে খেলা দেখার প্রভাব যৌন-জীবনে পড়তে বাধ্য। মাঝরাতের খেলা শেষ হতে ভোর। তারপরে ঘণ্টা-খানেকের ঘুমের পরেই অফিসের ডাক।

বাড়ি ফিরে ক্লান্তি বোধ করাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আপনার স্ত্রী দিনভর আপনার অপেক্ষা করে থাকে।

কিন্তু আপনিও বা কী করে খেলা ছেড়ে বিছানায় আসবেন? দুজনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি এড়াতে চিকিৎসকদের পরামর্শ, এক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে হবে স্ত্রীকেও। দুজনে একটু গল্প করুন, কথা বলুন। সারাদিন কী হল অল্প কথায় বুঝিয়ে বলুন স্ত্রীকে। তারপরে খেলা দেখার অনুমিত চেয়ে নিন। বেডরুমে টিভি থাকলে আওয়াজ অল্প করে শুনুন।

কোন কোন খেলা না দেখলেই নয় তার একটা চার্ট বানিয়ে নিন। সঙ্গীর সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলুন। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা-জার্মানির খেলা ছাড়া যাবে না এ কথা জানিয়ে দিন স্ত্রীকে। আর সপ্তাহের অন্তত দুটো রাত রাখুন স্ত্রীর জন্য।

[প্রিয় পাঠক, আপনিও দৈনিক যুগান্তর অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-[email protected]-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]