ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৭

স্যামসাং অ্যাপলের ফোনে ক্যান্সারের ঝুঁকি, আদালতে মামলা

https://www.jugantor.com/tech/221715/স্যামসাং-অ্যাপলের-ফোনে-ক্যান্সারের-ঝুঁকি-আদালতে-মামলা
BY  যুগান্তর ডেস্ক ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:২৬ | অনলাইন সংস্করণ
স্যামসাং অ্যাপলের ফোনে ক্যান্সারের ঝুঁকি। ছবি সংগৃহীত বিশ্বের শীর্ষ দুই মোবাইল ফোন জায়ান্ট কোম্পানি স্যামসাং ও অ্যাপলের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

স্যামসাং এবং অ্যাপলের কিছু ফোন থেকে অতিরিক্ত মাত্রায় রেডিয়েশন নির্গত হওয়ায় ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ার অভিযোগ এনে দক্ষিণ কোরীয় ও মার্কিন এ দুই কোম্পানির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকো শহরের ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে এ মামলা করেন স্যামসাং এবং অ্যাপলের ১৬ জন স্মার্টফোন ব্যবহারকারী।

এই ফোন দুটি থেকে নির্ধারিত হারের চেয়ে বেশি মাত্রায় ক্ষতিকর রেডিয়েশন নির্গত হওয়ায় ক্যান্সারসহ বেশকিছু স্বাস্থ্য সমস্যা তৈরি হচ্ছে বলে দাবি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিশ্বজুড়ে স্যামসাং ও অ্যাপলের কোটি কোটি স্মার্টফোন ব্যবহারকারী।

সানফ্রান্সিসকোর নর্দান ডিস্ট্রিক্ট অব ক্যালিফোর্নিয়ার আদালতে দায়েরকৃত মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত মাত্রার চেয়ে অতিরিক্ত পরিমাণে ক্ষতিকর রেডিয়েশন নির্গত হচ্ছে অ্যাপল ও স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন থেকে।

মামলায় আরও বলা হয়,ব্যবহারকারীরা এ মাত্রা সম্পর্কে জানলে তারা এ দুই কোম্পানির ফোন ব্যবহার করতেন না।

মামলায় অভিযোগকারীরা হলেন- আইনজীবী শিকাগোর ফেগান স্কট, আইওয়ার অ্যান্ডারসন, গোপলিরাড. উইসি, ওয়েস্ট ডেস মোইনেস।

তারা বলেন, অ্যাপল ও স্যামসাং গ্রাহকদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়াচ্ছে। কোম্পানি দুটির ফোন থেকে উচ্চমাত্রার রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি রেডিয়েশন নির্গত হচ্ছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, বৈদ্যুতিক তরঙ্গ স্থানান্তরের মাধ্যমে অতিরিক্ত রেডিয়েশন নির্গমন করছে স্যামসাং এবং অ্যাপলের স্মার্টফোন।ফলে ফোন ব্যবহারকারীদের মাঝে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

এর আগে ২০১৭ সালের জুলাইয়ের এক গবেষণায় বলা হয়, স্মার্টফোন থেকে ক্ষতিকর রেডিয়েশন নির্গতের শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে বিশ্বের শীর্ষ তিন মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি। তার মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার শীর্ষ মোবাইল ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং।

গবেষকরা বলছেন, স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ থেকে নির্গত হাই ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশনের কারণে মানুষের দৃষ্টিশক্তি হারানোর শঙ্কা রয়েছে। এ ছাড়া ক্যান্সারসহ বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে।