ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫
BY  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ১২ জুন ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ
শেষ হয়ে আসছে সিয়াম সাধনার মাস রমজান। খাবার নিয়ে সংযমের নানা কথা মুখে বললেও সবাই এই সময়ে চান ভালো-মন্দ খেতে। বিশেষ করে ইফতারির সময়। তাছাড়া এই সময়টাতে সব শ্রেণী-পেশার মানুষেরই আয়-রোজগার বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় বেশি হয়।

চাকরিজীবীরা পান ঈদ বোনাস, ব্যবসায়ীরা আয় করেন বেশি মুনাফা। বাড়তি টাকা প্রাপ্তিতে সবাই প্রথমে চিন্তা করেন একটু ভালো কিছু খেতে। রোজার এতদিন পার হয়ে গেলেও যারা অতি সুস্বাদু কিন্তু একটু দামি একটি খাবার এখনও খাননি তারা খাবারটির স্বাদ নিতে পারেন।

ঝোলে-ঝালে অতি সুস্বাদু এই খাবারের নাম খাসির গ্লাসি। যারা একটু ঝাল আবার ঝোল ও মসলা মাখানো খাবার খেতে পছন্দ করেন তাদের জন্য খাসির গ্লাসি অত্যন্ত মুখরোচক। খাসির মাংসের সঙ্গে এ খাবারে থাকে সিদ্ধ করা আস্ত একটি ডিম। এটি সাধারণত নান রুটির সঙ্গে খাওয়া হয়। তবে কেউ চাইলে পোলাও বা ভাত দিয়েও খেতে পারেন।

খাসির গ্লাসির তৈরি করা হয় খাসির মাংস, ডিম সিদ্ধ, ঘি, দুধের মালাই, বাদাম, দুধ, আদা, রসুন, গরম মসলা, কাঁচামরিচ, পেঁয়াজ ও লবণ সহযোগে। সব ধরনের মসলা একত্রে বেটে মাংসের সঙ্গে ভালো করে মাখিয়ে প্রথমে একটি পাত্রে রাখা হয়।

তারপর মাংস পানিতে দিয়ে দমে রাখা হয়। মাংস সিদ্ধ হয়েছে নিশ্চিত হলে সিদ্ধ ডিম মাংসের সঙ্গে দেয়া হয়। তারপর ঘি দিয়ে পেঁয়াজকুচি ভেজে মাংস ঢেলে কষিয়ে দুধ মালাই ও বাদামকুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করা হয়।

রোজার এ সময়টাতে রাজধানীর নর্থ সাউথ রোডের হোটেল আল রাজ্জাকে অতি সুস্বাদু খাসির গ্লাসি বিক্রি করা হয়। এখানে এক টুকরো খাসির গ্লাসি একটি সিদ্ধ ডিমসহ দাম রাখা হয় ১৮০ টাকা। এ ছাড়া গুলশানের নামিদামি রেঁস্তোরাগুলোতেও খাসির গ্লাসি কিনতে পাওয়া যায়।

তবে সেখানে দাম পড়বে ২৫০-৩০০ টাকা। মোহাম্মদপুর, মিরপুর ও খিলগাঁওয়ের কিছু কিছু রেস্তোরাঁয়ও খাসির গ্লাসি পাওয়া যায়। অনেকে ইদানীং গরুর মাংসের গ্লাসিও তৈরি করেন। তবে খাসির গ্লাসি ইফতারের চাইতে সেহরির সময় বেশি হোটেলে পাওয়া যায়। যারা বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় সেহরি পার্টিতে অংশ নেন তাদের অনেকেরই পছন্দের খাবার খাসির গ্লাসি।