ঢাকা, শুক্রবার, ২০ এপ্রিল ২০১৮, ৭ বৈশাখ ১৪২৫
BYরিফাত পারভীন
১৭ এপ্রিল ২০১৮, ১৩:৩০

পোশাকে তো রুচির প্রকাশই ঘটে। আবার কোথায় কোন পোশাক পরছেন সেটা বোঝাও জরুরি। অফিসে যতটা সম্ভব পরিপাটি থাকা প্রয়োজন। মেয়েদের অফিসের পোশাক নানা রকম। অনেক কর্মক্ষেত্রে পোশাকের ধরাবাঁধা নিয়ম না থাকলেও করপোরেট অফিসে থাকে। ধরাবাঁধা নিয়ম না থাকলে ক্যাজুয়াল পোশাক পরলেও সেটি পরিপাটি হওয়া উচিত।

পাশ্চাত্য পোশাককরপোরেট কর্মক্ষেত্রে পশ্চিমা পোশাকের প্রচলন আগের থেকে এখন বেড়েছে। যেসব পোশাকের মধ্যে রয়েছে স্কার্ট, আনুষ্ঠানিক শার্ট, ফতুয়া, টপ, বিভিন্ন প্যান্ট, পালাজ্জো, ব্লেজার ইত্যাদি। করপোরেট অফিসের ফরমাল স্কার্টগুলো সাধারণত এক রঙের হয়ে থাকে। অফিসে কালো, সাদা, বাদামি ও হালকা যেকোনো রঙের স্কার্ট পরতে পারেন। এক রঙের স্কার্ট পছন্দ না হলে একই রঙের মখমলের হালকা নকশা করা স্কার্ট ভালো লাগবে। স্কার্টের সঙ্গে ফরমাল শার্ট বেছে নিতে পারেন, যা হবে টপের কাটে। টপটা হবে গলাবন্ধ এবং সামনে বোতাম দেওয়া। আবার পাতলা কিছু ফরমাল টপ পাওয়া যায়। ফরমাল ও লম্বা শার্টে ডোরা থাকতে পারে। মেয়েদের জন্য সেমিফিটিং ও সেমিন্যারো প্যান্ট পাওয়া যায়। এগুলো লিনেন ও গ্যাবার্ডিন কাপড়ের হতে পারে।

ফ্যাশন হাউস স্করপিয়নের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সরদার তাওহিদ আহমেদ বলেন, আবহাওয়া অনুযায়ী ইজিপশিয়ান সুতির হালকা রঙের শার্ট, টপ ও কুর্তি বেশি আরামদায়ক। করপোরেট অফিসের জন্য মেয়েরা এখন এমন পোশাকই চান, যাতে ফ্যাশন ও আরাম দুটোই পাওয়া যায়।

শাড়িঅফিসে শাড়ি আনুষ্ঠানিক ভাব এনে দেয়। তবে সব ধরনের ও সব নকশার শাড়ি অফিসের পরিবেশের সঙ্গে মানানসই নয়। টাঙ্গাইল শাড়ি কুটিরের স্বত্বাধিকারী মুনিরা এমদাদ বলেন, শাড়িতে কালো, ছাই, হালকা বেগুনি, গোলাপি থাকলে বেশ লাগবে। যেহেতু এখন গরম, তাই সুতি বা টাঙ্গাইল শাড়ি আরাম দেবে। শাড়িতে হালকা বাটিক, ব্লক বা হাতের কাজ থাকতে পারে। তবে অবশ্যই মোটা পাড়ের শাড়ি ভালো লাগবে না।সালোয়ার-কামিজঅফিসে সালোয়ার-কামিজ অনেকের কাছেই বেশ আরামদায়ক ও ফরমাল মনে হয়। ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার বলেন, অফিসের সালোয়ার-কামিজ হতে পারে ফুলেল ছাপা বা একরঙা। খুব ভারী কাজ নয় এবং হালকা রং বাছাই করতে হবে কামিজের জন্য। অফিসের জন্য থ্রি কোয়ার্টার হাতার কামিজের সঙ্গে চুড়িদার পরলে আনুষ্ঠানিক লুক চলে আসবে। এর বাইরে সালোয়ার বা পালাজ্জো তো আছেই।
কাপড় ও রংস্কার্টের কাপড় কৃত্রিম তন্তুর (সিনথেটিক) হতে পারে। আবার আরামের কথা চিন্তা করে ফরমাল সুতি স্কার্টও পরতে পারেন। প্যান্ট গ্যাবার্ডিন ও লিনেন হলেই ভালো হয়। শার্ট ও টপ সুতি, জর্জেট, সেমি সুতি, সার্টিন কাপড়, লিনেন ইত্যাদি বাছাই করতে পারেন। আবার প্যান্ট বা স্কার্ট যদি একটু গাঢ় রঙের হয়, তবে শার্ট বা টপ হালকা পেস্ট বা গোলাপি বেছে নিন।

শাড়ি ও সালোয়ার-কামিজের রঙের ক্ষেত্রে হালকা আকাশি, পেস্ট, সাদা , কালো, ধূসর, বাদামি, গোলাপি রং ভালো লাগবে।

চুল ও সাজকরপোরেট অফিসে চুল খোলা রেখে হালকা কোঁকড়া করে নিতে পারেন। আবার সামনে থেকে একটু ফুলিয়ে নিলেও মন্দ হবে না। আর যদি কেউ চুল আটকাতে চান, তবে তা হতে হবে স্মার্ট।অন্য অনুষঙ্গ ও জুতাফরমাল পোশাকের সঙ্গে স্লিপার ভালো লাগবে না। তাই মাঝারি আকারের হিল পরতে পারেন। আর হাতে পরতে পারেন ঘড়ি এবং কানে, গলায় হালকা ও ছোট আকারের দুল ও চেইন।