ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ভালো আছেন তরিকুল, চিকিৎসা মিলছে গোপনে

https://www.jagonews24.com/national/news/439274
BYসায়েম সাবু সায়েম সাবু , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক প্রকাশিত: ০৭:১৭ পিএম, ১২ জুলাই ২০১৮

ভালো আছেন তরিকুল। আগের থেকে খানিক উন্নতি ঘটেছে শারীরিক অবস্থার। রোজ ফিজিওথেরাপি চলছে। মাথার ১২টি সেলাই-ই খুলে দেয়া হয়েছে। আজ মাংস দিয়ে ভাতও খেয়েছে।

ভালোবাসার কোনোই কমতি নেই তরিকুলের জন্য। সহপাঠী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুরা আগলে রেখেছেন তরিকুলকে। বন্ধুসম শিক্ষকরা খোঁজ নিচ্ছেন প্রতি মুহূর্তে। মূলত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কতিপয় শিক্ষকের ভালোবাসার পরশ পেয়েই মাটিতে ফের পা ফেলার স্বপ্ন বুনছেন তরিকুল।

এত ভালোবাসা! তবে সবই কিন্তু গোপনীয়তায়! কোথায় চিকিৎসা নিচ্ছেন ছাত্রলীগের হাতুড়িতে পা ভাঙা তরিকুল ইসলাম, এখন কে তার চিকিৎসক, কারা সঙ্গে আছেন, সেসবের কিছুই প্রকাশ করছে না তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা।

মূলত ফের ছাত্রলীগের হামলা এবং পুলিশি গ্রেফতারের ভয়েই কঠোর গোপনীয়তায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে গুরুতর আহত তরিকুলের।

‘তবে সবার সহযোগিতায় তাকে ঢাকায় এনে উপযুক্ত চিকিৎসাই দেয়া হচ্ছে’ বলছিলেন, তরিকুলের বন্ধু মতিউর রহমান। মতিউর বলেন, নিরাপত্তার কারণেই আমরা হাসপাতালের নাম বলছি না। জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে থাকা তরিকুলকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যখন বের করে দিয়েছে, তখন আমাদের ভয়ের মাত্রা তীব্র হয়েছে।

আহত অনেককেই আটক করা হয়েছে। রিমান্ড দেয়া হচ্ছে। অন্য কোনো ঝামেলায় ওর চিকিৎসার ত্রুটি হলে, বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষক, নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা আগে তরিকুলের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে চাই। ওর বেঁচে থাকা জরুরি। রাষ্ট্র কোন মাত্রায় নিপীড়ক হয়েছে, তা তো আর বলার অপেক্ষা রাখে না। আরও ত্রাস প্রতিষ্ঠা করতে সরকার যা ইচ্ছা তাই করতে পারে।’

কোটা সংস্কারের আন্দোলনের শুরু থেকেই এই শিক্ষক সমর্থন জুগিয়ে আসছিলেন। আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করতেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।

এই শিক্ষক আরও বলেন, ঢাকায় এনে তরিকুলের পায়ে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। ১৫ দিন পর ক্র্যাচে ভর করে হাঁটতে পারবে বলে ডাক্তার জানিয়েছেন। তবে অন্তত ৩ মাস ভাঙা পা উঁচু করে থাকতে হবে তরিকুলকে।

উল্লেখ্য, গত ২ জুলাই বিকেলে কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় ছাত্রলীগের হাতুড়ি ও লাঠিপেটায় গুরুতর আহত হন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম। গত এক সপ্তাহেও তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় এবং পায়ে অস্ত্রোপচারের জন্য তাকে ঢাকায় আনা হয়।

এর আগে শনিবার রাতে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তরিকুলকে ঢাকায় স্থানান্তরের পরামর্শ দেন তার চিকিৎসক ডা. সাঈদ আহমেদ। তরিকুলের পায়ে অস্ত্রোপচার করার কথাও বলেন তিনি।

তরিকুলের তত্ত্বাবধানকারী চিকিৎসক ডা. সাঈদ আহমেদ বলেছিলেন, 'তরিকুলের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। তার ডান পা একদম ভেঙে গেছে এবং মেরুদণ্ডের হাড় মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তার পায়ে অস্ত্রোপচার করা জরুরি।’

ডা. সাঈদ ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দিলেও তরিকুলের চিকিৎসা আসলে কোথায় হচ্ছে, তা প্রকাশ করছে না তার পরিবার এবং বন্ধুমহল।

এএসএস/এমআরএম/জেআইএম