ঢাকা, শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

ফের চাঙ্গা মাদকবিরোধী অভিযান, আবার বাড়ছে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহতের সংখ্যা

http://www.pbd.news/lead-news/59573/ফের-চাঙ্গা-মাদকবিরোধী-অভিযান-আবার-বাড়ছে-বন্দুকযুদ্ধে-নিহতের-সংখ্যা
BYনিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ:  ১২ জুলাই ২০১৮, ০৪:৪৬ | আপডেট : ১২ জুলাই ২০১৮, ০৪:৫৬

সরকারের র্শীর্ষ পর্যায় থেকে মাদকনির্মূলের কঠোর নির্দেশনা পরই শুরু হয়েছিল দেশজুড়ে মাদকবিরোধী অভিযান। শুরুতে এ অভিযান সবশ্রেণির মানুষের সাধুবাদ পেলেও পরে মাদকব্যবসায় যুক্ত থাকায় 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহতের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এ নিয়ে প্রশ্ন তোলে মানবাধিকার সংগঠনগুলো। কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হক নিহতের ঘটনা ও নিহত হওয়ার সময়ের ফোনালাপ প্রকাশের পর এ অভিযান নিয়ে দেশবিদেশে তৈরি হয় তুমুল সমালোচনা। এর জেরেই বির্তকের মুখে মাদকবিরোধী অভিযান অনেকটা স্তিমিত হয়ে পড়ে।কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে এ অভিযান আবার পুরোদমে শুরু হয়েছে৷ বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা আবারও বাড়তে শুরু করেছে।

মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর মাদকবিরোধী অভিযান শুরু করে ১৪ মে থেকে৷ শুরুতে পুলিশ ও র্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে' একজন বা দুইজন নিহত হলেও। দিন গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তা বাড়তে থাকে। এমনকি অভিযানে একদিনে ১২ জন নিহত হওয়ারও রেকর্ড আছে৷ আর শুরুর পর এক মাসে মোট নিহত হন ১৫০ জন৷

এ অভিযান চলাকালে গত ২৭ মে রাতে আটকের কয়েক ঘণ্টা পর কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং সাবেক যুবলীগ নেতা একরামুল হক গুলিতে নিহত হন৷ তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা একরামুলকে ধরে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে৷ স্থানীয় থানায় তাঁর বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার কোনো অভিযোগ ছিল না৷ এরপর সংবাদ সম্মেলন করে একরামুলের স্ত্রী ‘ক্রসফয়ারের' একটি টেলিফোন রেকর্ডের অডিও প্রকাশ করেন, যা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ হলে ‘বন্দুকযুদ্ধের' ঘটনা নিয়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়৷ একরামের পরিবার এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা একরাম ‘হত্যার' বিচার দাবি করেন৷ আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন এবং বিভিন্ন বিদেশি দূতাবাস মাদকবিরোধী অভিযানে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার ঘটনার তীব্র সমালোচনা করে এ অভিযান বন্ধের দাবি জানায়৷ এরপর জুন মাসে মাসে মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার ঘটনা কমে যায়৷ কমতে কমতে শূন্যের কোঠায় নেমে আসে৷ জুন মাসে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার সংখ্যা কমে আসার পিছনে ঈদুল ফিতরও একটি কারণ হিসেবে কাজ করেছে৷

কিছুদিন বন্ধ থাকার পর সম্প্রতি আবার শুরু হওয়া মাদকবিরোধী অভিযানের প্রথম দিকে দেশের বিভিন্ন জেলায় এক-দুইজন করে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছিলো৷ বুধবার দেশের চার জেলায় মাদকবিরোধী অভিযানে ‘বন্দুকযুদ্ধে' পাঁচজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে৷ কেরানিগঞ্জ, কুষ্টিয়া, লক্ষ্মীপুর ও নাটোরে র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' ওই পাঁচজন নিহত হন৷ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দাবি, নিহত সবাই চিহ্নিত মাদক বিক্রেতা৷

মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয়েছে প্রায় দুই মাস৷ মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক)-এর হিসেবে মাদকবিরোধী অভিযান শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত ‘বন্দুকযুদ্ধে' ১৮৮ জন নিহত হয়েছে৷ এর মধ্যে প্রথম একমাসেই নিহত হয়েছেন ১৫০ জন৷ আর এই অভিযানে নামের মিল থাকায় ভুল মানুষ, দাবিকৃত টাকা না পেয়ে, রাজনৈতিক কারণে ‘বন্দুকযুদ্ধে' নিহত হওয়ার অভিযোগ আছে৷ কিন্তু এসব অভিযোগে এখনো কোনো মামলা হয়নি৷ আর সাধারণভাবে কোনো পরিবারের মামলা করার সুযোগও নেই৷ কারণ, প্রতিটি ঘটনায়ই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বাদী হয়ে মামলা করেছে৷

কক্সবাজারের ওয়ার্ড কাউন্সিলর একরামুল হক নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলা করেছে র‌্যাব৷ টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান, ‘মোট তিনটি মামলা হয়েছে৷ একটি র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলা, একটি অস্ত্র আইনে এবং তৃতীয়টি মাদক আইনে৷ প্রথম মামলায় নিহত হওয়ার ৩০২ ধারাও আছে৷ মামলায় বলা হয়েছে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলার পর বন্দুকযদ্ধে একরাম নিহত ও সহযোগীরা পালিয়ে যান৷ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র এবং গুলি উদ্ধার দেখানো হয়েছে দ্বিতীয় মামলায়৷ আর মাদক আইনের মামলায় মাদক দ্রব্য উদ্ধার দেখানো হয়েছে৷'

একরামের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করা হয়নি ;দাবি করে ওসি বলেন, আমরা মামলাটির তদন্ত করছি৷ দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে বুধবার একরামের স্ত্রী'র সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাঁর মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়৷ পরিবারের অন্য দুই সদস্যের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা মামলা নিয়ে কোনো কথা বলতে চাননি৷ জানা গেছে, একরামের স্ত্রী এখন তাঁর মোবাইল ফোনটি আর অন করেন না৷ আর অধিকাংশ সময় তিনি তাঁর দুই মেয়েকে নিয়ে চট্টগ্রামে থাকেন৷

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘এইসব ঘটনায় মামলা হয়৷ আর মামলা করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী৷ ফলে এইসব মামলার তদন্তে প্রকৃত ঘটনা জানা যায় না৷ আর তদন্ত যা হয়, তা নির্বাহী তদন্ত৷ ওই তদন্তও তেমন কাজে আসে না৷ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মামলা করলেও যে-কেউ এখানে পার্টি হতে পারে৷ কিন্তু সেই পরিবেশ নেই৷

তিনি বলেন, আমি মানবাধিকার কশিমনের চেয়ারম্যান থাকাকালে বেশ কয়েকটি ঘটনার তদন্ত স্বাধীনভাবে করেছিল কমিশন৷ তাতে কয়েকটি ঘটনায় ক্রসফায়ার বা বন্দুকযুদ্ধের সত্যতা পাওয়া যায়নি৷ আমরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলার সুপারিশ করেছিলাম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে পুলিশ সদরদপ্তরে৷ তার দু-একটি ঘটনায় মামলা হয়েছে বলে মনে পড়ে৷ অধিকাংশ ঘটনায়ই মামলা হয়নি৷'

ড. মিজানুর রহমান আরো বলেন, একরামকে হত্যার পর অভিযান তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে৷ যারা এই কাজে যুক্ত ছিলেন, তারা সতর্ক হয়ে যান৷ ফলে আমরা দেখি, বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা কমতে থাকে৷ কিন্তু তাদের এই ধীরে চলো নীতি ছিল কিছু দিনের জন্য৷ তারা আবার আগের মতোই শুরু করেছে৷ অভিযানের নামে বন্দুকযুদ্ধে নিহতের সংখ্যা আবার বাড়ছে৷ কমে যাওয়ায় আমরা আশ্বস্ত হয়েছিলাম৷ কিন্তু এখন আমরা আবার উদ্বিগ্ন৷

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক মানবাধিকার কর্মী নূর খান বলেন, ‘বন্দুকযুদ্ধ বা ক্রসফায়ারের অনেক ঘটনা যে হত্যাকাণ্ড তা প্রমানের জন্য যথেষ্ট সাক্ষ্য-প্রমাণ আমাদের কাছে আছে, মানুষের কাছে, সাংবাদিকদের কাছে আছে৷ কিন্তু যে ভয়ার্ত পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছে, তাতে ওইসব সাক্ষ্য-প্রমাণ নিয়ে মানুষ কথা বলতে সাহস পাচ্ছে না৷ কেউ কথা বলতে চাইলে তাকে থামিয়ে দেয়া হয়৷ পুলিশ এইসব মামলায় যে প্রতিবেদনই দিক না কেন, তাতে নারাজি দিয়ে বা অধিকতর তদন্তের আবেদন করা যায় আদালতে৷ কিন্তু সেটার জন্য পরিবেশ পরিস্থিতির প্রয়োজন৷ আর একবার মামলা হলে থানায় ওই ঘটনায় আরেকটি মামলা করা সুযোগ থাকে না৷'

তিনি আরও বলেন, একরাম হত্যার অডিও ক্লিপ প্রকাশের পর মানুষ চরম বেদনা অনুভব করে৷ তাঁরা স্বজন হারানোর কষ্ট অনুভব করে৷ তাই কিছুদিন বন্দুকযুদ্ধ বন্ধ রেখেছিল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী৷ এখন আবার শুরু করেছে৷ তারা এর মাধ্যমে দেশে এক ভয়ার্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে রাখতে চায়, যাতে কোনো প্রতিবাদ বা আন্দোলন হতে না পারে৷