ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
BY  নিজস্ব প্রতিবেদক ০১ অক্টোবর ২০১৮, ১৩:০৯ | আপডেট : ০১ অক্টোবর ২০১৮, ১৬:১৪ | অনলাইন সংস্করণ

দেশে মোবাইল গ্রাহকের বহুল প্রতীক্ষিত মোবাইল নম্বর পরিবর্তন না করে অপারেটর বদলানোর সুবিধা মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটির (এমএনপি) অপারেশনাল ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল রোববার রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে এই সেবা চালু হয়েছে। এই সেবার আওতায় এবার ট্যাক্স-ভ্যাটসহ ১৫৮ টাকায় অপারেটর বদল করতে পারবেন মোবাইল গ্রাহকরা।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৯টায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৫০ জন গ্রাহক এই সেবা গ্রহণ করেছেন বলে জানা গেছে।

এখন থেকে মোবাইল গ্রাহকরা তাদের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর অপরিবর্তিত রেখে যেকোনো অপারেটর বদল করে ভয়েজ ও ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। এ জন্য একজন সেবাগ্রহিতা নির্ধারিত ফি ৫০ টাকা প্রদানের মাধ্যমে প্রতিবারের জন্য অপারেটর বদল করতে পারবেন।অবশ্য এর ওপর ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট আছে। ফলে গ্রাহকের ফি দাঁড়াচ্ছে ৫৭ টাকা ৫০ পয়সা। এ ছাড়া সিম পরিবর্তনের ওপর জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ১০০ টাকা কর আছে। সব মিলিয়ে গ্রাহকের ফি দাঁড়াচ্ছে ১৫৮ টাকা। তবে একজন গ্রাহক কমপক্ষে ৯০ দিনের আগে অপারেটর বদল করতে পারবেন না।

ইতিমধ্যে কমিশন কর্তৃক এমএনপি প্রক্রিয়ায় এর কারিগরি ও বাণিজ্যিক মডেল নির্ধারণ করা হয়েছে। যার ওপর ভিত্তি করে এমএনপিএস অপারেটর, মোবাইল অপারেটর, আইটিডব্লিউ, আইসিএক্স, আইপিটিএক্সপি, পিএসটিএন অপারেটর প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের সিস্টেম স্থাপন, আপগ্রেডেশন এবং এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কারিগরি পরীক্ষা-নিরীক্ষা সফলভাবে সম্পন্ন করেছে।

এমএনপি সেবা বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ খাতের জন্য একটি বড় পরিবর্তন নিয়ে এলো। এর মাধ্যমে ডিজিটাল দেশ গড়ার ক্ষেত্রে এক ধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ।

সোমবার বিটিআরসির সম্মেলন কক্ষে কমিশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক উপস্থিত থেকে এই সেবাটির বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালুর বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেন। এর মাধ্যমে তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের এই সেবার কারিগরি ও বাণিজ্যিক সম্ভাবনার বিষয়ে অবহিত করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিটিআরসির বিভিন্ন বিভাগের কমিশনার, মহাপরিচালক ও এমএনপি সেবা প্রদাণের লক্ষ্যে লাইসেন্সপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান ইনফোজিলিয়ান ও বিডি টেলিটকের কর্মকর্তারা।