ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, ১০ মাঘ ১৪২৫

নিজেদের আন্ডারডগ ভাবছেন হিথ স্ট্রিক

https://www.jagonews24.com/sports/cricket/403650
BYক্রীড়া প্রতিবেদক প্রকাশিত: ১১:০৯ পিএম, ১৩ জানুয়ারি ২০১৮

নিজেদের শক্তি এবং সামর্থ্য সম্পর্কে বেশ ভালোই ধারণা আছে জিম্বাবুয়ে কোচ হিথ স্ট্রিকের। বাংলাদেশে দুই বছর কোচিং করিয়ে গেছেন তিনি- এটা ঠিক। এ কারণে হয়তো বাংলাদেশ সম্পর্কে একটা বাড়তি ধারণা আছে তার। তবে হিথ স্ট্রিকের ধারণা এই জানাটা ত্রিদেশীয় সিরিজে তাদের কোনো কাজে আসবে না। বরং, বাংলাদেশের মটিতে শেষ আটটি ম্যাচে টানা হেরেছে জিম্বাবুয়ে। তখন তো বাংলাদেশ দলেই ছিলেন হিথ স্ট্রিক। সে সব তার নিশ্চয়ই মনে আছে। তবুও তাদের আত্মবিশ্বাস, গত বছর শ্রীলঙ্কার মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জয়। তবুও এবারের সিরিজে নিজেদের আন্ডারডগই ভাবছেন হিথ স্ট্রিক।

আজ (শনিবার) মিরপুর শেরেবাংলায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হওয়ার পর হিথ স্ট্রিকের কাছে জানতে চাওয়া হয়, বাংলাদেশে কাটানো আপনার আগের সময়টা জিম্বাবুয়ের জন্য কোনো সুবিধাজনক হবে কি না?

জবাবে হিথ স্ট্রিক বলেন, ‘আমার মনে হয় না এতটা কাজে আসবে। যদি এখানে আমি আমার কাজটা ভালো করে থাকি, তাহলে তো এখন আমাদের জন্য পারফর্ম করা খুবই কঠিন হবে। আমি নিজের জন্য যেটা চিন্তা করি, সেটা হচ্ছে উইকেট, কন্ডিশন এবং কয়েকজন ক্রিকেটার সম্পর্কে জানা আছে আমার। কিন্তু বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের অধিকাংশেরই জানা আছে সময় এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী কি করতে হবে তাদের।’

বিপিএলে খেলে গেছেন জিম্বাবুয়ের চার ক্রিকেটার। গ্রায়েম ক্রেমার, সিকান্দার রাজা, ম্যালকম ওয়ালার এবং সলোমন মিরে। এটা কোনো কাজে দেবে কি না? জানতে চাইলে হিথ স্ট্রিক বলেন, ‘ক্রেমার, রাজা, ওয়ালার এবং মিরে- এরা খেলেছে বিপিএলে। অবশ্যই তাদের অভিজ্ঞতা এবং নতুনদের সম্পর্কে কিছু তথ্য হয়তো আমাদেও কাজে আসবে। তারা হয়তো কন্ডিশনটা ভালোভাবে বুঝতে পারবে এবং এটা হয়তো সিরিজে আমাদের কিছু কাজে লাগবে।’

এরপরই জানতে চাওয়া হয়, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট কী এখন সঠিক পথে আছে? জবাবে হিথ স্ট্রিক জানালেন সঠিক পথেই আছে। তবে অনেক দুর যেতে হবে তাদের। তার একটা ধাপ এই ত্রিদেশীয় সিরিজ। যেখানে তারা নিজেদের আন্ডারডগেই ভাবেন।

হিথ স্ট্রিক বলেন, ‘আমি মনে করি, এখনও আমাদের অনেক দুর যেতে হবে। এই সিরিজে আমরা নিশ্চিত আন্ডারডগ। তবে এখনও বিশ্বাস করি, আমাদের হাতে এখন কিছু মানসম্পন্ন ক্রিকেটার এসেছে যারা জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। গত বছর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আমরা নিজেদের প্রমাণ করেছি যে, নিজেদের দেশের বাইরে যে কারও বিপক্ষে লড়াই করতে সক্ষম। এটা অনেক সুখের। তবে আমাদের এখনও অনেক দুর যেতে হবে।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জয় কতটা আত্মবিশ্বাস যোগাবে? হিথ স্ট্রিকের জবাব, ‘এই জয় আমাদের মধ্যে এই বিশ্বাস এবং আত্মবিশ্বাস দুটোই জন্ম দিয়েছে যে, আমরাও লড়াই করতে জানি। এরআগে আমরা খুব বেশি ওয়ানডে ক্রিকেট খেলিওনি। এমনকি খুব বেশি টেস্টও না। তাদের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট খেলার পর লঙ্কানরা ইতিমধ্যে ১৬টি টেস্ট খেলে ফেলেছে। আমরা আসলে কিছুই খেলতে পারিনি। তবে আমরা প্রস্তুতিটা খুব ভালো নিয়েছি। আশাকরি, ত্রিদেশীয় সিরিজে ভালো করতে পারবো এবং যত দ্রুত সম্ভব নিজেদের এখানে মানিয়ে নিতে হবে। তাহলে হয়তো ভালো কোনো ফল বয়ে আনতে পারবো। আমি মনে করি, আমাদের কাছে সেই স্কিলফুল খেলোয়াড় রয়েছে। যারা শ্রীলঙ্কা এবং বাংলাদেশকে ভালো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে পারবে। আমি, জানি এই দলটির জেতার সামর্থ্য আছে।’

আইএইচএস/আরএস