ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

থিসারা পেরেরার কাছেই হারলো ‘এ’ দল

https://www.jagonews24.com/sports/cricket/440712
BYবিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা প্রকাশিত: ০৮:২৫ পিএম, ১৯ জুলাই ২০১৮

চার দিনের ‘আনঅফিসিয়াল টেস্টের’ মত কি একদিনের সিরিজেও হারতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল? লক্ষণ কিন্তু তেমনই।

সিলেটে চার দিনের সিরিজের শেষ ম্যাচে ইনিংস পরাজয়ের পর প্রথম ওয়ানডেতে ২ রানের ছোট ব্যবধানে জিতলেও আজ দ্বিতীয় একদিনের খেলায় ৬৭ রানের বড় ব্যবধানে হেরে গেছে স্বাগতিক ‘এ’ দল।

শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক থিসারা পেরেরা একাই ব্যবধান গড়ে দিয়েছেন। কার্যত তার কাছেই হেরে গেছে বাংলাদেশ ‘এ ’ দল।

পুরো ম্যাচের চালচিত্র প্রায় একই রকম। আগে ব্যাটিংয়ে নামা লঙ্কান ‘এ’ দলের শুরু ভালো হয়নি। ১০৩ রানে ইনিংসে অর্ধেকটা খুইয়ে বসা লঙ্কান ‘এ ’ দল এক পর্যায়ে ১২৯ রানে ৭ উইকেট খুইয়ে ধুঁকছিল চরমভাবে।

সেই জায়গায় হাল ধরেন থিসারা পেরেরা। অধিনায়োকোচিত ব্যাটিং করেন। সাত নম্বরে নেমে ৪৭ ওভার পর্যন্ত উইকেটে থেকে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি উপহার দেন এই অলরাউন্ডার। তার ব্যাট থেকে বেরিয়ে আসে ৮৮ বলে ১১১ রানের ঝড়ো ইনিংস। পাঁচ বিশাল ছক্কা ও নয় বাউন্ডারিতে সাজানো ঐ ইনিংসের ওপর ভর করে চরম বিপর্যয় কাটিয়ে ৫০ ওভার শেষে ২৭৫ রানের লড়িয়ে পুঁজি পায় শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দল।

দুই লঙ্কান লোয়ার অর্ডার থিসারাকে দারুণ সাপোর্ট দেন। অষ্টম উইকেটে থিসারা আর পুষ্পকুমারা ৭৭ রানের জুটি গড়ে অবস্থা পাল্টে দেন। এই জুটিতে পুষ্পকুমারার অবদান ছিল মোটে ৮ রান। এরপর অধিনায়ক থিসারার সঙ্গী হন পেসার মধুশঙ্কা। তিনি অপরাজিত থাকেন ৩৬ রানে (৩৬ বলে)।

বাংলাদেশের বোলাররা প্রায় ৩০ ওভার পর্যন্ত প্রতিপক্ষের ওপর পূর্ণ কর্তৃত্ব ও প্রভাব বিস্তার করেছেন। ২৮.৫ ওভারে সাত লঙ্কানকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। ডান হাতি অফস্পিনার নাইম হাসান দারুণ সমীহ জাগানো বোলিং করে ৪২ রানে পতন ঘটান তিন উইকেটের। বাঁহাতি স্পিনার সানজামুলও পেয়েছেন দুই উইকেট। কিন্তু পুষ্পকুমারা আর মধুশঙ্কাকে নিয়ে খাদের কিনারা থেকে উঠে শেষ তিন উইকেটে ১৪৬ রান যোগ করে দলকে ফাইটিং স্কোর গড়ে দেন থিসারা। বাংলাদেশ ‘এ’ দল তা পারেনি।

সেঞ্চুরি অনেকদূরে কেউ শতরানও করতে পারেননি। মিডল অর্ডার ছোট আল আমিন ৬৫ বলে ৪৬ রানের ইনিংসটি ছাড়া আর একজনও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেননি। এছাড়া ওপেনার সৌম্য সরকার (৫ বলে তিন বাউন্ডারিতে ১২) ব্যর্থ আরেকবার। অপর ওপেনার সাইফ হাসান (৩০ বলে ২৮) ও তিন নম্বর জাকির হাসান (৩৭ বলে ৩২) দ্বিতীয় উইকেটে সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন। কিন্তু দুজনই ওয়েল সেট হয়ে আউট হলে ঘটে ছন্দপতন। তারপর আল আমিন আর আরিফুল (৫৩ বলে ২৭) চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তা যথেষ্ট ছিল না মোটেই। ৩৩ বল বাকি থাকতে বাংলাদেশের ইনিংস গুটিয়ে যায় ২০৮ রানে।

এআরবি/এমএমআর/পিআর