ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৭

সেই বিজ্ঞাপনের কড়া সমালোচনায় সানিয়া মির্জা

https://www.jugantor.com/sports/186989/সেই-বিজ্ঞাপনের-কড়া-সমালোচনায়-সানিয়া-মির্জা
BY  স্পোর্টস ডেস্ক ১২ জুন ২০১৯, ২৩:৫১ | অনলাইন সংস্করণ
ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ গড়াতে এখনো চারদিন বাকি। এর আগেই মাঠের বাইরে শুরু হয়ে গেছে যুদ্ধ। সোশ্যাল মিডিয়ায় দুই চিরশত্রু দেশের সমর্থকেরা একে অপরের প্রতি মিম, ট্রোলিংয়ে মেতেছেন। পাশাপাশি টিভিতেও শুরু হয়েছে বিজ্ঞাপনী মোড়কে ব্যঙ্গ। এতে ভীষণ বিরক্ত টেনিস সেনসেশন সানিয়া মির্জা।

পাক-ভারত ক্রিকেটীয় যুদ্ধ শুরু হলেই শিরোনাম হন সানিয়া। ভারতীয় কন্যা, পাকিস্তানি বউমা বলেই সমস্যায় পড়েন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় হন ট্রোল। এবারো ব্যতিক্রম নয়। কিছুদিন আগেই পাকিস্তানকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ভারতীয় সমর্থকদের রোশানলে পড়েন তিনি।

যাহোক, বিজ্ঞাপনী দৌরাত্ম্যে (বাড়াবাড়ি) এবার নিজেই রেগে গেলেন সানিয়া। আইসিসি টুর্নামেন্টে ইন্দো-পাক মহারণের আগে ভারতীয় সম্প্রচারকারী সংস্থায় প্রচার হয় ‘মওকা মওকা’ বিজ্ঞাপন। বিগত কয়েক বছর ধরেই তা নজর কেড়ে আসছে। চলতি বছর সেটির আপডেট সংস্করণ সম্প্রচার হচ্ছে।

এবার পাকিস্তান-ভারত দ্বৈরথ হচ্ছে বিশ্ব বাবা দিবসে। সেই দিনটিকে কেন্দ্র করেই বিজ্ঞাপন বানিছে ভারতীয় সম্প্রচারকারী সংস্থা স্টার স্পোর্টস। তাতে ভারতকে ‘বাবা’ এবং পাকিস্তান-বাংলাদেশকে ‘পুত্র’ হিসেবে দেখানো হয়েছে। এরপর থেকেই চরম সমালোচিত এ বিজ্ঞাপন।

বিজ্ঞাপনটিতে দেখা যায়, বাংলাদেশের জার্সি পরে একজন পাকিস্তান জার্সি পরা এক ব্যক্তিকে বলছেন- ভাই সপ্তমবারের মতো বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছ, শুভকামনা।

তখন পাকিস্তান জার্সি পরা লোকটি বাংলাদেশ জার্সির ব্যক্তিকে বলে—চেষ্টা করতে থাকা উচিত। চেষ্টা করলে একটা সময় জয় আসবেই, এমনটা বাবা বলতেন। তখন পাশ থেকে ভারতের জার্সি পরা আরেকজন বলে ওঠেন—কই আমি এমনটা কখন বলেছি?

পাল্টা বিজ্ঞাপন তৈরি করেছে পাকিস্তান। তাতে দেখানো হয়েছে ভারতের উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে। ভিডিওতে তার মুখ দিয়ে বলানো হয়েছে সেই পরিচিত সংলাপ, আয়াম নট সাপোসড টু টেল ইউ দ্যাট। ছেড়ে দেয়ার সময় তার হাত থেকে কেড়ে নেয়া হয় চায়ের কাপটিও।

জোড়া বিজ্ঞাপনের পরিপ্রেক্ষিতেই নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে সানিয়া লেখেন,সীমান্তের দুই পারেই কু বিজ্ঞাপনের প্রদর্শন। উত্তেজনা বাড়ানো এবং মার্কেটিংয়ের জন্য কুরুচিকর পন্থা নেয়ার দরকার নেই। এ ম্যাচ ঘিরে ইতিমধ্যে যথেষ্ট আগ্রহ ও উৎসাহ তৈরি হয়েছে। এটি কেবল একটা ক্রিকেট ম্যাচ। যারা একে এর বাইরে দেখতে চান, তাদের জন্য সমবেদনা রইল। স্বভাবতই তার টুইটটি প্রশংসিত-নিন্দিত দুই-ই হচ্ছে।