ঢাকা, বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

রানাতুঙ্গার পর আপত্তিকর অভিযোগ উঠল মালিঙ্গার বিরুদ্ধে

https://www.jugantor.com/sports/99834/রানাতুঙ্গার-পর-আপত্তিকর-অভিযোগ-উঠল-মালিঙ্গার-বিরুদ্ধে
BY  স্পোর্টস ডেস্ক ১১ অক্টোবর ২০১৮, ২১:৪৪ | অনলাইন সংস্করণ
লাসিথ মালিঙ্গা-অজুনা রানাতুঙ্গা-ছবি সংগৃহীত আদিকাল থেকেই নারীরা যৌন নিগ্রহের শিকার হয়ে আসছেন। তবে লজ্জার কারণে অনেকেই মুখ খুলেননি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে যৌন নিগ্রহের শিকার হওয়া নারীরা যাতে নিজেদের নিগ্রহের কথাগুলো অকপটে স্বীকার করতে পারেন সেজন্য ভারতের প্লেব্যাক গায়িকা চিন্ময়ী শ্রীপদ টুইটারে ‘হ্যাশট্যাগ মিটু’ আন্দোলনে সোচ্চার হচ্ছেন। যৌন হেনস্তা হওয়া নারীরা টুইটারে সেই ঘটনা জানাচ্ছেন চিন্ময়ীকে তিনি। তা প্রকাশ করছেন।

হ্যাশট্যাগ মিটুর সেই ক্যাম্পেইনে বিপাকে পড়েছেন শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক বতর্মান সরকারের মন্ত্রী অর্জুনা রানাতুঙ্গা। লংকান এই তারকা ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনেছেন এক ভারতীয় বিমানকর্মী।

রানাতুঙ্গার বিপক্ষে অভিযোগ ওঠার একদিন না যেতেই ফের অভিযোগ লংকান তারকা পেস বোলার লাসিথ মালিঙ্গার বিপক্ষে।

লাসিথ মালিঙ্গার নাম উল্লেখ করে চিন্ময়ী তার পোস্টে লিখেন, ‘আমি নাম প্রকাশ করতে চাচ্ছি না। কয়েক বছর আগে মুম্বাইয়ে ঘটেছিল এ ঘটনা। আমরা যে হোটেলে ছিলাম, সেখানে আমার বান্ধবীকে খুঁজছিলাম। এমন সময় খুবই বিখ্যাত এক শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটারের সঙ্গে দেখা হলো। তখন আইপিএল চলছিল। তিনি বললেন, আমার বান্ধবী নাকি তার রুমেই আছে।’

‘বান্ধবীকে খোঁজ করতে আমি তার রুমে গেলাম, কিন্তু সেখানে আমি আমার বান্ধবীকে পেলান না। সেই ক্রিকেটার তখন আমাকে ধাক্কা দিয়ে বিছানায় ফেলে দেয় এবং আমার শরীরের ওপর চড়ে বসে। আমি বেশ লম্বা এবং একটু স্থূলকায়। ফলে আমি তার সঙ্গে গায়ের জোরে পেরে উঠছিলাম না।’

তিনি আরও লেখেন, ‘আমি ভয়ে মুখ ও চোখ বন্ধ করে ফেলি। কিন্তু সেই ক্রিকেটার আমার গাল ব্যবহার করে। এমন সময় হোটেলের কর্মচারীরা রুমে কিছু জিনিস দিয়ে যেতে দরজায় নক করে। ক্রিকেটার দরজা খুলতে যায়। আমি দ্রুত বাথরুমে গিয়ে মুখ ধুয়ে নেই। এবং হোটেল কর্মচারী বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমিও বেরিয়ে যাই।’

‘আমি তখন অপমানিত বোধ করছিলাম। আমি জানি মানুষ বলবে, আমি জেনে বুঝেই সেখানে গিয়েছি। সে বিখ্যাত ক্রিকেটার, তুমিই চেয়েছিলে এমন কিছু করতে। কিংবা বলবে তোমার সঙ্গে এর চেয়েও ভয়ংকর কিছু হওয়া উচিত ছিল।’