ঢাকা, সোমবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ৯ মাঘ ১৪২৫

সবচেয়ে বিরক্তিকর খেলার তিনে ক্রিকেট!

http://www.prothomalo.com/sports/article/1407366/সবচেয়ে-বিরক্তিকর-খেলার-তিনে-ক্রিকেট
BYখেলা ডেস্ক
১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:২৫

শেষ বলে ৫ রান দরকার। কে জিতবে সে চিন্তায় দাঁতে নখ কাটছেন দুই দলের সমর্থকেরা। কারও জ্বর চলে এসেছে, কারও-বা গায়ে দিচ্ছে কাঁপুনি। বোলার বল করলেন, সে বল ব্যাট ছুঁতেই চিৎকার দিয়ে উঠল একদল সমর্থক। অন্য দল হাত দিয়ে মাথা চেপে ধরে বসে পড়ল। ক্রিকেট বিরক্তিকর? এমন কথা বলে, এমন বুকের পাটা কার? ব্রিটিশদের!

ক্রিকেটের আদর্শ দর্শক কারা? খুব একটা চিন্তা করতে হয় না। সবাই উত্তরে ইংল্যান্ডের কথাই বলবে। ক্রিকেটের জনকের দাবিদার দেশটিতে এখনো স্বমহিমায় চলছে খেলাটি। এখনো টেস্ট ম্যাচ দেখতে স্টেডিয়াম ভরে যায় সেখানে। উপমহাদেশের দর্শকদের তুলনায় চার-ছক্কার চেয়ে সত্যিকারের ক্রিকেটেই মজেন তাঁরা। কিন্তু দ্য টাইমস-এর এক প্রতিবেদন সেসব চিন্তা যে মাথা থেকে বের করে দিচ্ছে। টাইমস-এর জরিপে বিরক্তিকর খেলায় তৃতীয় হয়েছে ক্রিকেট!ইউরোপের কোনো ক্রিকেট-বিবর্জিত শহরে গিয়ে জরিপ চালানো হয়নি। কিংবা হালের টি-টোয়েন্টি প্রজন্মকে বানানো হয়নি জরিপের ‘গিনিপিগ’। ব্রিটেনেরই ১ হাজার ৬১৬ জন পূর্ণবয়স্ক মানুষের কাছে ১৭টি খেলা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল। তাতে ৫৮ ভাগ মানুষ বলেছেন, ক্রিকেট তাঁদের কাছে ‘বোরিং’ মনে হয়। ১৭ ভাগ মানুষ এ খেলাকে গড়পড়তা বলেছেন। তা-ও ভালো, ২২ ভাগ মানুষের কাছে অন্তত ক্রিকেটকে রোমাঞ্চকর মনে হয়েছে।ক্রিকেটের চেয়েও মানুষের বিরক্তি উদ্রেকে এগিয়ে আছে দুটি খেলা। দুইয়ে আছে আমেরিকান ফুটবল। রাগবির যুক্তরাষ্ট্রীয় অপভ্রংশ ৫৯ ভাগ মানুষের কাছেই ভালো লাগেনি। তবে সবার শীর্ষে আছে গলফ। ৭০ ভাগ মানুষের চোখেই গলফ দেখা সময়ের অপচয়। সবচেয়ে মজার বিষয়, বাস্কেটবলের মতো খেলাও ব্রিটিশদের কাছে বিরক্তিকর। দম ফেলতে না দেওয়া এই খেলা ৫২ ভাগ মানুষের কাছে বিরক্তিকর!জরিপের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক, ১৭টি খেলার মধ্যে মাত্র ৫টি খেলাই রোমাঞ্চকর মনে হয়েছে অংশগ্রহণকারীদের মাঝে! অ্যাথলেটিকস (৪৭%), টেনিস (৪৩%), ফুটবল (৪৩%), রাগবি (৪১%) ও জিমন্যাস্টিকের (৩৬%) কপালেই শুধু বিরক্তিকরের চেয়ে রোমাঞ্চের দিকে ভোট পড়েছে।তবে ফুটবলের জন্যও সতর্কসংকেত এ জরিপ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ কিংবা স্কটিশ লিগ নিয়ে উত্তেজনায় কাঁপতে থাকা একটা অঞ্চলের ৪০ ভাগ মানুষ ফুটবলকে ‘বোরিং’ ভাবে, ভাবা যায়!