ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৬

পিএসজিতে ল্যাতিন দ্বন্দ্ব চরমে!

http://www.rtvonline.com/sports/31140/পিএসজিতে-ল্যাতিন-দ্বন্দ্ব-চরমে
BYস্পোর্টস ডেস্ক|  ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:৩১ | আপডেট : ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:৩৬

সামনেই চ্যাম্পিয়নস লিগে মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। শেষ ষোলোতে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে বলেই এই ম্যাচকে মহাগুরুত্বপূর্ণ বলা হচ্ছে। কিন্তু এমন ম্যাচকে সামনে রেখেও পিএসজির সব ঠিকঠাকভাবে চলছে না। যার বড় কারণ ল্যাতিন ঝড়। সাউথ আমেরিকানদের দ্বন্দ্বে রীতিমত বেতাল অবস্থায় পিএসজির ড্রেসিংরুম।

গত আগস্টে নেইমার যোগ দেয়ার পরপরই পিএসজিতে জ্বলে উঠে বিভক্তির আগুণ। পেনাল্টি নেয়া নিয়ে নেইমার ও এডিনসন কাভানির দ্বদ্বের সূত্র ধরে পিএসজিতে দেখা দেয় বিভক্তির দেয়াল! খেলোয়াড়েরা দুই শিবিরে বিভক্ত হয়ে পড়ে। যার এক পক্ষে ছিলেন নেইমারসহ ব্রাজিলিয়ান খেলোয়াড়েরা। অন্য পক্ষে উরুগুইয়ান কাভানিসহ পিএসজির আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়েরা। সময়ের স্রোতে সেই দ্বন্দ্ব কিছুটা স্তিমিতও হয়েছিল বটে। তবে ভেতরে ভেতরে যে তা তুসের আগুন হয়েই জ্বলছিল, দ্বন্দ্বটা নতুন করে মাথাচাড়া দেয়াতেই তার প্রমাণ। পিএসজিতে আবার ব্রাজিলিয়ান বনাম উরুগুইয়ান-আর্জেন্টাইন দ্বন্দ্ব প্রকট! -------------------------------------------------------- আরও পড়ুন:পাঠকদের ভোটে নির্বাচিত উয়েফার সেরা একাদশ -------------------------------------------------------- পিএসজিতে আবার নতুন করে দ্বন্দ্বের খবরটি বিশ্ববাসীকে দিয়েছে ফ্রান্সের সবচেয়ে জনপ্রিয় পত্রিকা লেকিপ। না, নেইমার নন, তসের আগুন হয়ে জ্বলা পুরোনো দ্বন্দ্বটাকে নতুন করে দাউ দাউ করে জ্বেলে দেয়ার মূল নায়ক এবার ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভা। পিএসজির অধিনায়কত্বের আর্মব্র্যান্ডও আবার তার বাহুতেই। অধিনায়ক থিয়গো সিলভার জ্বালাময়ী মন্তব্যকে কেন্দ্র করেই পুরোনো দ্বন্দ্বটা জ্বলে উঠেছে দাউ দাউ করে।

হ্যা, সিলভাই নতুন দ্বন্দ্বের কেন্দ্রবিন্দুতে। তবে দ্বন্দ্বের উৎসে সেই নেইমারই। তার জন্যই তো কাভানিসহ পিএসজিতে খেলা দুই আর্জেন্টাইন হাভিয়ের পাস্তোরে ও অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়ার যত ক্ষোভ।

শীতকালীন ছুটি শেষে ক্লাবে ফিরতে দেরি করেছেন কাভানি, পাস্তোরে, ডি মারিয়ারা। শুধু তাই নয়। বুধবার ফ্রেঞ্চ লিগ কাপের ম্যাচ ছিল পিএসজির। অ্যামিনেসের বিপক্ষে সেই ম্যাচে খেলেননি বেশি ছুটি কাটানো কাভানি, পাস্তোরেরা। দলের অধিনায়ক হিসেবে সিলভা এ নিয়ে তাদের দু-চার কথা বলতেই পারেন। কিন্তু সিলভা ক্ষোভটা ঝেরেছেন একটু অন্যভাবে। টেনে এনেছেন অন্য প্রসঙ্গ। ম্যাচ শেষে মিক্সড জোনেই কাভানি ও পাস্তোরের সঙ্গে বেঁধে যায় সিলভার। লেকিপ জানিয়েছে উতপ্ত বাক্য বিনিময়ই হয়েছে তাদের মধ্যে।

শুধু তাই নয়, সিলভা নাকি ইনস্টাগ্রামে বিস্ফোরক এক মন্তব্য করেছেন। গত কিছুদিন ধরেই গুঞ্জন পিএসজি ছাড়তে চায় আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড পাস্তোরে। সেই প্রসঙ্গ টেনে সিলভা নাকি লিখেছেন, ‘ক্লাবের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, আমাদের সবার উচিত মিলেমিশে থাকা। কিন্তু যা হচ্ছে তা এই গ্রুপটির জন্য ভালো কিছু নয়। যা করবেন, তার আগে অবশ্যই আপনাকে ভাবতে হবে। এটা দলের কারো জন্যই ভালো নয়। পাস্তোরে ও কাভানির ব্যাপারটি আলাদা।’

এটুকুও ঠিক ছিল। তবে কাভানি-পাস্তোরেরা নাকি বেশি চটেছেন সিলভার পরের কথায়, ‘পাস্তোরে নাকি ক্লাব বলে দিয়েছে, সে ক্লাব ছাড়তে চায়। কিন্তু তারা কোনো চুক্তি এখনো খুঁজে পায়নি। কাভানির ব্যাপারে অবশ্য আলাদা।’

এ ব্যাপারে কাভানি এখনো প্রকাশে মুখ খুলেননি। তবে পাস্তোরে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে সিলভাকে জবাবটা দিয়ে দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘আমি কখনোই আমার সমস্যা বা ভবিষ্যতের বিষয়ে থিয়াগো সিলভার সঙ্গে কথা বলিনি। আমি কাউকে কোনোরকম চাপও দিইনি। এটা আমার স্টাইল নয়। আমি কেন দেরি করে ক্লাবে ফিরেছি, আমার সেই সমস্যা সম্পর্কে সে অবগত নয়।’

২৮ বছর বয়সী পাস্তোরে যোগ করেছেন, ‘আমি আগেই বলেছি। আবারও বলছি, আমি সব সময়ই এখানে থাকতে চাই। আমি ক্লাব ছাড়তে চাই, এটা সত্য নয়। ক্যারিয়ারের বাকি সময়টা এখানেই কাটিয়ে দিতে চাইব আমি।’

লেকিপের প্রতিবেদনেও বলা হয়েছে, পুরোনো তিক্ততার সূত্র ধরেই পিএসজিতে নতুন করে এই দ্বন্দ্বের আগুণ। অনেক অনৈক সুযোগ সুবিধা দিয়ে বার্সেলোনা থেকে নেইমারকে নিয়ে এসেছে পিএসজি। আর্থিক সুবিধার পাশাপাশি আরো অনেক বিষয়েই নেইমারকে বেশি সুবিধা দেয়া হয়। গত কদিন আগেই যেমন হঠাৎ ছুটি নিয়ে ব্রাজিলে ছুটে গিয়েছিলেন নেইমার। সে জন্য পিএসজির দুটো ম্যাচ তিনি খেলতে পারেননি।

কাভানি, পাস্তোরে, ডি মারিয়াদের ক্ষোভের কারণ এটাই। তারা কিছুতেই নেইমারকে বেশি সুবিধা দেয়াটা মেনে নিতে পারছেন না। তাছাড়া নেইমার কিলিয়ান এমবাপে আসার পর পাস্তোরে, ডি মারিয়ারা ম্যাচও বেশি খেলতে পারছেন না। যা তাদের ক্ষোভের আগুনটা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। আর সেই ক্ষোভের বহিপ্রকাশ ঘটাচ্ছেন নানাভাবে। সিলভা, নেইমার, দানি আলভেস, লুকাস মৌরা, মারকুয়েনহোসরাও পিএসজিতে গড়ে তুলেছেন শক্ত বলয়।

শেষ পর্যন্ত অহংবোধের এই দ্বন্দ্ব ব্রাজিলিয়ানরা নাকি, উরুগুইয়ান-আর্জেন্টাইন বলয় জিতবে সেটা অন্য বিষয়। তবে ফুটবলবোদ্ধারা অভ্যন্তরিণ এই দ্বন্দ্বে সর্বনাশ দেখছেন ক্লাব পিএসজির। আর কদিন পরই সাক্ষাৎ দৈত্য রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। তার আগে খেলোয়াড়দের নতুন করে কলহে জড়িয়ে পড়ায় পিএসজির কোচ-কর্তারাও নিশ্চয় চিন্তিত।

আরও পড়ুন

এএ