ঢাকা, রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৭

‘জেদ করেই অভিনয়ের ব্যাপারে সিরিয়াস হই’

https://www.dhakatimes24.com/2021/05/04/212878/জেদ-করেই-অভিনয়ের-ব্যাপারে-সিরিয়াস-হই
BYবিনোদন প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস

ঢাকাই চলচ্চিত্রের এই সময়ের অন্যতম ব্যস্ত একজন নায়ক মামনুন হাসান ইমন। তার শোবিজে যাত্রা শুরু হয়েছিল মডেলিং দিয়ে। এরপর টিভি নাটকে অভিনয় করেন। গত ১৪ বছর ধরে তিনি পুরোদস্তুর চলচ্চিত্রের নায়ক। মহামারির এই সময়টায় কীভাবে কাটছে তার দিনকাল? এ বিষয় ছাড়াও ক্যারিয়ারের বিভিন্ন দিক নিয়ে তিনি কথা বলেছেন ঢাকা টাইমসের সঙ্গে।

ঢাকা টাইমস: রোজা এবং লকডাউনের এই সময়টা কীভাবে কাটাচ্ছেন? ইমন: এই সময়টাতে আমি বাসায়ই আছি। লকডাউনটা স্ট্রিকলি পালন করছি। গত দেড় মাস বাসা থেকে বেরোচ্ছি না। পরিচিত কারও সঙ্গেও দেখা করতে পারছি না। কঠোর লকডাউনের মধ্যেও অনেকে বাইরে যাচ্ছে, কিন্তু আমি যাচ্ছি না। এদিকে যেহেতু রোজার মাস চলছে, তাই রোজা রাখছি, নামাজ পড়ছি, ইসলামিক বই পড়ছি, কোরআন তেলাওয়াত করছি।ঢাকা টাইমস: স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনেকে লকডাউনের মধ্যেও শুটিং করছেন। আপনি করছেন না?ইমন: একদমই না। কারণ, করোনা পরিস্থিতি খুব বাজে দিকে যাচ্ছে। ইন্ডিয়ার অবস্থা খুবই খারাপ। বাংলাদেশের অবস্থাও খুব একটা ভালো না। তাই যতটুকু নিরাপদে থাকা যায়, সেফ থাকা যায়, ঘরে থাকা যায় সেই চেষ্টা করি।
ঢাকা টাইমস: ঈদ সামনে রেখে কোনো পরিকল্পনা আছে?ইমন: যেহেতু এখন শুটিং বন্ধ রেখেছি, তাই ঈদ সামনে রেখে আপাতত তেমন কোনো পরিকল্পনা নেই।ঢাকাটাইমস: সম্প্রতি শেষ হওয়া এবং হাতে থাকা কাজগুলো সম্পর্কে বলুন।ইমন: সাদেক সিদ্দিকী পরিচালিত ‘সাহসী যোদ্ধা’ ছবিটির কাজ অনেক আগেই শেষ করেছি। অঞ্জন আইচের ‘আগামীকাল’, রাকিবুল আলম রাকিবের ‘বিয়ে আমি করব না’ ছবি দুটির কাজও শেষ। সাইদুল ইসলাম রানার ‘বীরত্ব’ ছবিটির শুধুমাত্র একটা গানের শুটিং বাকি, রোমান্টিক গান। এছাড়া অঞ্জন আইচের আরেকটা ছবি ‘কানামাছি’র শুটিং লকডাউনের আগে শুরু করেছিলাম। সেটির মাত্র দুই দিনের শুটিং বাকি। লকডাউনের জন্য কাজটা শুরু করতে পারিনি। যদি লকডাউন শিথিল হয়, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়, তাহলে ঈদের পর হয়তো নতুন ছবির কাজ শুরু করব।ঢাকা টাইমস: অভিনেতা হওয়ার পেছনের গল্পটা শুনতে চাই।

আমি তো আসলে মডেলিং দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলাম। মডেল হওয়ার জন্যই শোবিজে এসেছিলাম। তারপর আমাকে তাজিন আপু (তাজিন আহমেদ) আফজাল ভাইয়ের একটা নাটকের প্রস্তাব দেন। সেটাতে অভিনয় করতে গিয়ে দেখলাম যে, আমাকে কোনো ডায়লগ দেয়া হচ্ছে না, আমি আসলে পারছি না। আমার যেহেতু কোনো অভিনয় ব্যাকগ্রাউন্ড নেই। যেখানে অন্য সবাই ভালো অভিনয় করছে, কিন্তু আমি পারছি না। তখন জেদ করেই অভিনয়ের ব্যাপারে সিরিয়াস হই। তারপর আস্তে আস্তে নাটকে ডায়লগ দেয়া শুরু করি। ভালো ভালো কাজ করতে শুরু করি। এভাবেই আসলে অভিনয়ের লাইনটা শুরু হয়।

ঢাকা টাইমস: ইন্ডাস্ট্রিতে কাকে নিজের আইডল বা অনুপ্রেরণা মনে করেন এবং কেন?ইমন: যেহেতু মডেল হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিলাম, তাই মডেলিংয়ে আমার আইডল হচ্ছেন নোবেল ভাই। ফিল্মের কথা যদি বলি, তাহলে সালমান শাহ। উনার (সালমান) স্টাইল, উনার সবকিছুই ভালো লাগতো। এছাড়া আরও অনেকেই আমার পছন্দের আছে।ঢাকা টাইমস: অপু বিশ্বাসের সঙ্গে ‘এক বুক ভালোবাসা’ নামে একটি ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। সেটি দর্শকপ্রিয় হয়েছিল। তার পরও কেন আর অপুর বিপরীতে দেখা যায়নি?ইমন: ২০০৮ সালে সম্ভাবত এই কমার্শিয়াল ছবিটি করেছিলাম। এরপর আর অপু বিশ্বাসের সঙ্গে কাজ করা হয়নি। কারণ ওই সময় শাকিব ভাইয়ের সঙ্গে তার একটি জুটি ছিল। উনি শাকিব ভাইয়ের সঙ্গেই ধারাবাহিকভাবে কাজ করেছেন। অন্য কোনো হিরোর সঙ্গে খুব একটা দেখা যায়নি। আমিও একটা ছবিই করতে পেরেছিলাম। এরপর নিয়মিত অন্য নায়িকাদের সঙ্গে কাজ করেছি। বিশেষ করে, ওই সময়ে যারা টপে ছিলেন। কিন্তু অপু বিশ্বাসের সঙ্গে আর কাজ করা হয়নি।ঢাকা টাইমস: ‘দারুচিনি দ্বীপ’ ছবিটি দিয়ে আপনার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়েছিল। প্রথম কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?ইমন: ইমপ্রেস টেলিফিল্মের ছবি ছিল এটি। শ্রদ্ধেয় হুমায়ূন আহমেদের লেখা গল্পে। আমার ভিষণ পছন্দের লেখক। তাকে কখনো সামনাসামনি দেখিনি। তবে তার প্রচুর বই পড়েছি। এখনো পড়ি। তৌকীর ভাই ছবিটি বানিয়েছিলেন। ছবিটি আমার জীবনে স্বপ্নের মতো ছিল। তখন আমি একদম ইয়াং, নতুন। চলচ্চিত্রে অভিনয় করছি- এটা ভাবতাম আর একটা ঘোরের মধ্যে ছিলাম। ওই স্মৃতি এখনো মনে পড়ে, কখনো ভুলব না।ঢাকা টাইমস: ঢালিউডে কাজ করছেন ১৪ বছর। নিজেকে কতটা সমৃদ্ধ করতে পেরেছেন?ইমন: আসলে নিজেকে সমৃদ্ধ করার জন্য ভালো ভালো ছবি প্রয়োজন, ভালো গল্প আর চরিত্র প্রয়োজন। সেই ধরনের ছবি সামনে আসছে ইনশাআল্লাহ। আসলে আরও অনেক কিছু দেয়ার আছে, অনেক কিছু করার আছে। তারপর যদি নিজেকে সমৃদ্ধ মনে করি। কিন্তু এখন একদমই না।ঢাকা টাইমস: চলচ্চিত্র নিয়ে আপনার ভবিষ্যত পরিকল্পনা কী?ইমন: এই মুহূর্তে আসলে চলচ্চিত্র নিয়েই আমার সব পরিকল্পনা। ফিল্মের জন্য এখন প্রচুর পরিশ্রম করছি। গল্পনির্ভর ভালো চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে চাই। সেগুলো যেন ক্যারেক্টর বেইজ হয়। একটা ছবিতে শুধু হিরো, ফাইট আর গান থাকবে বিষয়টা এরকম না। আমার চরিত্রটি যেন টাচি হয়। তাই এখন যে ছবিগুলো করছি, সেগুলোতে আমার চরিত্রের উপর বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

ঢাকাটাইমস/০৪মে/এএইচ